Trial Run

পাকিস্তানে সংখ্যালঘুদের নাগরিক অধিকার নেই

ছবি: সংগৃহীত

পাকিস্তান এখন ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের জন্য ধীরে ধীরে নরক হয়ে উঠছে। প্রতিদিনই সেখানে সংখ্যালঘুদের ওপর চলে অকথ্য অত্যাচার। অধিকাংশ সময়ই তা প্রকাশ্যে না এলেও মাঝেমধ্যেই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে দেখা যায় পাকিস্তানে উগ্র মৌলবাদীরা সংখ্যালঘুদের ওপর কী পরিমাণে অত্যাচার চালাচ্ছে। সংখ্যালঘুরা ভয়ে কোনো প্রতিবাদ করতে পারে না। তাদের সেখানে কোনো নাগরিক অধিকার নেই। পাকিস্তানী হয়েও তাদের থাকতে হয় অনাগরিকের মতো। পাকিস্তানের একটি মানবাধিকার সংগঠন গত শুক্রবার(২ এপ্রিল) একটি প্রতিবেদন এসব জানিয়েছে। খবর ডেইলি সিক।

প্রতিবিদনে আরো বলা হয়েছে, ইসলামী প্রজাতন্ত্রের দেশ পাকিস্তানের সংখ্যালঘুরা প্রতিনিয়ত অবরোধের মধ্যে জীবন যাপন করতে বাধ্য হয়। তাত্ত্বিকভাবে, পাকিস্তানের সংবিধান সমস্ত নাগরিককে সমান অধিকার প্রদান করে, তবে এগুলি কেবল কাগজে কলমে রয়েছে। ধর্মীয় সংখ্যালঘু যেমন, হিন্দু, খ্রিস্টান, শিখ, বৌদ্ধ, আহমদি এমনকি শিয়ারাও দেশটিতে অ-নাগরিক হিসাবে বিবেচিত হয়। তাদের কথা বলার অধিকার নেই। সংবিধানমূলক বা আইনের সুরক্ষার অধিকার থেকেও বঞ্চিত এখানকার লোকেরা। গণতন্ত্র, বহুত্ববাদ ও মানবাধিকার কেন্দ্র (সিডিপিএইচআর) তার প্রতিবেদনে এ কথা বলেছে।

‘পাকিস্তান রাজ্যে সংখ্যালঘুরা রাষ্ট্রহীন। পাঞ্জাব অধ্যুষিত সামরিক-রাজনীতি কেবল ধর্মীয় সংখ্যালঘুদেরই জন্য জটিল নয়, বেলুচ ও হাজারারও মানবাধিকার লঙ্ঘন করে, বলে প্রতিবেদনে যোগ করা হয়েছে। প্রতিবেদনে দেশটিতে কঠোর নিন্দাসহ আইনের চলমান ইস্যুও তুলে ধরা হয়েছে এবং বলা হয়েছে, “আইন অন্য ধর্মের লোকদের শোষণ ও পরাধীন করার বড় একটি সরঞ্জামের মতো কাজ করে’। ‘কুরআনের অবমাননা বা ইসলাম ও নবীকে অপমান করার নকল গুজব ছড়িয়ে, সংখ্যালঘু এবং তাদের পরিবারকে এই ভয়ঙ্কর আইনের মাধ্যমে সন্ত্রাসবাদী, পরাধীন এবং ধর্মান্তরিত করা হয়েছে বলে এতে বলা হয়েছে।

প্রতিবেদনে আরো বলা হয়েছে, যদিও পাকিস্তান আন্তর্জাতিক নাগরিক ও রাজনৈতিক অধিকার সম্পর্কিত আন্তর্জাতিক চুক্তি (আইসিসিপিআর) এর মতো বেশ কয়েকটি আন্তর্জাতিক মানবাধিকার চুক্তির স্বাক্ষরকারী, তবে, যে পরিবেশে ধর্মীয় ও জাতিগত সংখ্যালঘুরা নিজেকে ঘৃণামূলক বক্তব্য, সহিংসতা এবং পুনরাবৃত্তি দ্বারা চিহ্নিত করে তুলেছে নিন্দা আইন কানুন।

“এই নিপীড়ন ধর্মীয় ও জাতিগত সংখ্যালঘুদের নিরাপদভাবে বসবাস করা এবং মত প্রকাশের এবং বিশ্বাসের অধিকারের পুরোপুরি তাদের ব্যবহার করা ক্রমশ কঠিন করে তুলেছে।”

প্রতিবেদনে আরো উল্লেখ করা হয়েছে যে, বালুচ, পশতুন এবং সিন্ধিদের মতো কিছু জাতিগত সংখ্যালঘুরা পাঞ্জাব অধ্যুষিত সামরিক ও আমলাতন্ত্র দ্বারা নির্যাতিত হয়। বেলুচিস্তানের স্বাধীনতা আন্দোলন এখানকার পাঞ্জাবি অধ্যুষিত সামরিক বাহিনীর দ্বারা সহিংসভাবে দমন করা হয়েছে। জাতিগত সংখ্যালঘুদের ক্ষেত্রে জোরপূর্বক অপহরণ, ধর্ষণ, বলপূর্বক নিখোঁজ হওয়া এবং সামরিক বাহিনীর দ্বারা আটককৃতদের বিচার বহির্ভূত হত্যাকান্ড প্রায়ই ঘটে থাকে এখানে।

মানবাধিকার সংগঠনগুলি আরো বলেছে যে পাকিস্তানে মানবাধিকার আন্দোলন একটি “দাঁতবিহীন আন্দোলন” এবং পাকিস্তানের অধিকার সংগঠনগুলি অস্তিত্ব কেবল কাগজে কলমে।

আন্তর্জাতিক মানবাধিকারকর্মীরা বলেন, সিন্ধু প্রদেশে বসবাসকারী হিন্দুদের ওপর উগ্র মৌলবাদীরা ব্যাপক অত্যাচার চালায় এবং বাড়ি থেকে নারীদের তুলে নিয়ে ধর্ষণ করে। নাবালিকা ও যুবতীদের অপহরণের পর বলপূর্বক ধর্মান্তরিত করে বিয়ে করে। এখানে প্রতিবাদ করা মানে খুন হয়ে যাওয়া। এ ঘটনা সম্পর্কে ইমরান খানের প্রশাসন সম্পূর্ণ অবগত হয়েও নীরব দর্শকের ভূমিকা পালন করছে। এভাবেই ধীরে ধীরে অন্ধকারে ডুবে যাচ্ছে পাকিস্তানের হিন্দু সম্প্রদায়সহ অন্যান্য ধর্মাবলম্বীরা, তাদের মুক্তির পথ জানা নেই। এসব ঘটনায় কোনো দৃশ্যমান বিচার আজ পর্যন্ত দেখা যায়নি, যা খুবই নিন্দনীয়।

তারা বলেন, পাকিস্তানের হিন্দু ও অন্যান্য সংখ্যালঘুদের দ্বিতীয় শ্রেণির নাগরিক হিসেবে থাকতে হয়। বাসস্থান, সরকারি সুযোগ-সুবিধা পাওয়াসহ জীবনের প্রতিটি পদক্ষেপে বৈষম্যের শিকার হতে হয়। অমানবিক অত্যাচার ও নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে বহু হিন্দু পরিবারই এখন ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করতে বাধ্য হচ্ছে। সম্প্রতি পাকিস্তানে খ্রিষ্টান, শিখ, হিন্দু বা আহমদিয়াদের মতো ধর্মীয় সংখ্যালঘুরা যে কী চরম দুর্দশা ও নির্যাতনের মধ্যে দিন কাটাচ্ছেন, তা নিয়ে একটি তীব্র সমালোচনামূলক রিপোর্ট প্রকাশ করেছেন ইউরোপীয় পার্লামেন্টের সদস্যরা। বাস্তব জীবন থেকে একের পর এক উদাহরণ তুলে ধরে তারা দেখিয়েছেন, কীভাবে সেখানে সংখ্যালঘু সমাজের নারী বা মেয়েশিশুরা ধর্ষণ ও অপহরণের শিকার হচ্ছেন।

তারা বলেন, পাকিস্তান অভিশপ্ত দেশ। লক্ষ লক্ষ মানুষকে তারা হত্যা করেছে। পাকিস্তানী সেনারা এখনও প্রতিনিয়ত বেলুচ, সিন্ধু ও গিলগিস্তান প্রদেশসহ বিভিন্ন প্রদেশে ধর্মীয় সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের উপর নৃশংস নির্যাতন-নিপীড়ন ও গণহত্যা চালিয়ে যাচ্ছে। মানবাধিকার লঙ্ঘনের লীলাভূমিতে পরিণত হয়েছে পাকিস্তান। এছাড়াও জঙ্গি উৎপাদনের প্রজনন কেন্দ্রও রয়েছে দেশটিতে।

এসডব্লিউ/এমএন/কেএইচ/১৮৩৮ 


State watch সকল পাঠকদের জন্য উন্মুক্ত সংবাদ মাধ্যম, যেটি পাঠকদের অর্থায়নে পরিচালিত হয়। যে কোন পরিমাণের সহযোগীতা, সেটি ছোট বা বড় হোক, আপনাদের প্রতিটি সহযোগীতা আমাদের নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার ক্ষেত্রে ভবিষ্যতে বড় অবদান রাখতে পারে। তাই State watch-কে সহযোগীতার অনুরোধ জানাচ্ছি।

ছড়িয়ে দিনঃ
  • 144
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    144
    Shares

আপনার মতামত জানানঃ