Trial Run

চীনের সিল্ক রোড যা বিশ্ব পুনর্নির্মাণ করবে

ছবি: সংগৃহীত

মহাচীন হিসেবেই চীনের খ্যাতি। বিশাল আয়তন, জনশক্তি, অর্থনৈতিক শক্তি, এমনকি সামরিক শক্তিতেও চীন এখন ধরাছোঁয়ার বাইরে। চীনকে বাদ দিয়ে কোনো দেশের পক্ষেই কিছু করা সম্ভব নয়। চীন গত দশ বছরে প্রায় ৮০ কোটি  মানুষকে দারিদ্র্য থেকে মুক্ত করেছে। পাঁচ বছর আগে, বৈশ্বিক আধিপত্য বিস্তারের জন্য বেল্ট অ্যান্ড রোড ইনিশিয়েটিভ (বিআরআই) বা ওয়ান অঞ্চল ওয়ান ওয়েয়ের মাধ্যমে দেশটি আন্তর্জাতিক সহযোগিতার কৌশলগত পদক্ষেপ নিয়েছিল। এর মাধ্যমে চীন তার মিত্র ও উন্নয়নশীল দেশগুলির সাথে সম্পর্ক বিকাশ ও জোরদার করার প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছে।  চীনের এই বেল্ট অ্যান্ড রোড ইনিশিয়েটিভই একবিংশ শতাব্দীর সেই সিল্ক রোড, যা চীন থেকে ইউরোপ পর্যন্ত ৬ টি প্রধান অর্থনৈতিক করিডোরের মাধ্যমে বিস্তৃত।

চীনের প্রেসিডেন্ট শি চিনপিংয়ের ‘ব্রেন চাইল্ড’ হচ্ছে—সিল্ক রোড অর্থনৈতিক বেল্ট। একে বলা হয় ‘ওয়ান রোড ওয়ান বেল্ট’। ২০১৩ সালের সেপ্টেম্বর-অক্টোবরে চীনের প্রেসিডেন্ট কাজাখস্তান ও ইন্দোনেশিয়া সফর করেন। তখন তিনি প্রথমবারের মতো সিল্ক রোডের মহাপরিকল্পনার কথা উল্লেখ করেন। সিল্ক রোডই হবে একুশ শতকের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি অর্জনের প্রধান সোপান। তবে চীনের প্রেসিডেন্টের স্বপ্ন আরো বড়। তিনি এশিয়া, ইউরোপ, আফ্রিকা ও আমেরিকাকে এক সুতায় গাঁথতে চান। তিনি তার বক্তব্যে বলেন, সংশ্লিষ্ট দেশগুলোর অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি অর্জনে সিল্ক রোড বিশাল ভূমিকা রাখবে।যার মধ্যে বিগত দশকগুলির মধ্যে ১ ট্রিলিয়ন মার্কিন ডলারেরও বেশি মূল্যমানের বিশ্বের বৃহত্তম অবকাঠামোগত প্রকল্প অন্বর্ভক্ত রয়েছে।

প্রেসিডেন্ট শি চিনপিংয়ের প্রস্তাব উপস্থাপনের পরপরই চীনের উদ্যোগে কর্মকর্তা পর্যায়ে একটি বৈঠক হয়। বৈঠকে বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান, আফগানিস্তানসহ দক্ষিণ এশিয়া, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া ও ইউরোপীয় দেশগুলোকে আমন্ত্রণ জানানো হয়। চীনকে সেই স্বর্ণযুগে ফিরিয়ে আনতে, বিআরআই-এর প্রাথমিক পরিকল্পনাগুলির মধ্যে রয়েছে নিউ ইউরেশিয়ান ল্যান্ড ব্রিজ, চীন-মঙ্গোলিয়া-রাশিয়া অর্থনৈতিক করিডোর (সিএমইআরসি), চীন-পাকিস্তান অর্থনৈতিক করিডোর (সিপিইসি), চীন-মধ্য ও পশ্চিমা অর্থনীতি, চীন-ইকোনমিক করিডোর এবং বাংলাদেশ-চীন-ভারত-মিয়ানমার অর্থনৈতিক করিডোর (বিসিআইএমইসি)। রেলপথ, বিমানবন্দর, বন্দর, পাইপলাইন, শিল্প সম্পত্তি এবং রিয়েল এস্টেট প্রকল্পগুলি সহ নিখরচায় বাণিজ্য চুক্তি সহ বাণিজ্য রুট এবং অবকাঠামোগত করিডোরগুলির ব্যাপক বিকাশের মাধ্যমে নতুন সিল্ক রোডটির নির্মাণকাজ শুরু হয়েছিল।

সম্প্রতি বিআরআই বা নতুন সিল্ক রোড প্রকল্প ইউরোপের ৩ টি শহরকে কেন্দ্র করে তার ইউরেশিয়ান ল্যান্ড ব্রিজ করিডোরের উন্নয়ন কার্যক্রম শুরু করেছে। এথেন্সে চীনা রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন শিপিং এবং লজিস্টিক সংস্থা কসকো শহরের পিরাউই বন্দরকে বেসরকারীকরণ এবং প্রসারিত করছে। সংস্থাটি চীনা পণ্যগুলির জন্য পিরাউইকে ইউরোপের প্রবেশদ্বার বানানোর লক্ষ্যে রয়েছে। দ্বিতীয় শহরটি কলম্বো, যেখানে চায়না হারবার এঞ্জিনিয়ারিং সংস্থা একটি সমুদ্র পুনরুদ্ধার প্রকল্পের নেতৃত্ব দিচ্ছে। তাদের লক্ষ্য মহাসাগরে একটি নতুন শহর তৈরি করা। কলম্বো পোর্ট সিটি মেরিটাইম সিল্ক রোডের একটি মূল কেন্দ্রে পরিণত হবে বলে আশা করা হচ্ছে। লন্ডনে চীনা নির্মান সংস্থা ‘অ্যাডভান্সড বিজনেস পার্ক’ ৩৫ একরের পরিত্যক্ত রয়্যাল অ্যালবার্ট ডককে বিশ্বব্যাপী ব্যবসায়িক অঞ্চলে রূপান্তরে সহযোগিতা করছে।

উল্লেখিত ৩টি শহরেই পরিবহণ অবকাঠামোর সংমিশ্রণে স্থানগুলির পরিবর্তন সাধন করা হচ্ছে, যা তথাকথিত দেশগুলির জন-জীবনে গভীর প্রভাব ফেলবে। এই প্রকল্পগুলির মধ্যে রয়েছে বিলাসবহুল হোটেল, শপিংমল, অত্যাধুনিত ফ্ল্যাট, সৈকত ভিলা, ব্যক্তিগত উদ্যান, ক্যাসিনো এবং বহু স্কাইস্ক্র্যাপার বা আকাশচুম্বী দালানকোঠা।

সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, চীনের বিশাল নতুন সিল্ক রোড বিশ্বকে রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক, সাংস্কৃতিক ও পরিবেশগতভাবে পুনর্গঠনের সম্ভাবনা রয়েছে, যা ইতিমধ্যে বিশ্বজুড়ে শহরগুলিকে অভ্যন্তরীণ থেকে গভীরভাবে রূপান্তরিত করতে শুরু করেছে। তাদের সম্পদ, নিখরচায় বাণিজ্য এবং বিলাসবহুল হটস্পট হিসাবে প্রতিস্থাপন। এই প্রকল্পগুলিকে একটি নির্দিষ্ট লক্ষের দিকে নিয়ে যেতে কাজ করছে কেবল চীনা প্রভাবই নয়, প্রতিটি দেশের সরকারী এবং ব্যক্তিগত স্বার্থেও কাজ করে। পাইরাউই, কলম্বো এবং লন্ডনের প্রকল্পগুলির ব্র্যান্ডিং দেশগুলির জাতীয় আকাঙ্ক্ষাকে পরিষ্কার করেছে।

এসডব্লিউ/এমএন/ এফএ/২০৪৫

 

ছড়িয়ে দিনঃ
  • 4
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    4
    Shares

আপনার মতামত জানানঃ