Trial Run

আইনপ্রয়োগের চিত্র ও গণমাধ্যম: ৩০ ডিসেম্বর ২০২০

স্টেটওয়াচ রিসার্চ নেটওয়ার্ক কাজ করছে বাংলাদেশে আইনপ্রয়োগের সার্বিক চিত্র তুলে ধরার পাশাপাশি মতপ্রকাশের স্বাধীনতা সংক্রান্ত বাস্তবতা নিয়ে। এর অংশ হিসেবে স্টেটওয়াচ নিউজে আমরা প্রতিদিনকার আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতা ও গণমাধ্যম সংক্রান্ত খবরাখবরগুলো সংক্ষেপে তুলে ধরার উদ্যোগ নিয়েছি। প্রতিদিন নিম্নোক্ত মাধ্যমসমূহ থেকে সংবাদগুলো সংগ্রহ ও তা নথিবদ্ধ করছে আমাদের কর্মীরা: প্রথম আলো, কালের কণ্ঠ, যুগান্তর, সমকাল, নয়া দিগন্ত, ইত্তেফাক, দেশ রূপান্তর, ডেইলি স্টার, নিউ এজ, দ্য ফিনান্সিয়াল এক্সপ্রেস, বাংলা ট্রিবিউন, বিডিনিউজ২৪ ডটকম, আমাদের সময়, মানবজমিন। আমরা আশা করি, এই প্রতিবেদন নিয়মিত প্রকাশের মাধ্যমে জনগণের তথ্যপ্রাপ্তির অধিকার আরো শক্তিশালী হবে।

৩০ ডিসেম্বর ২০২০, বুধবার, ১৫ পৌষ ১৪২৭, পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত
আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও গণমাধ্যম সংক্রান্ত নির্বাচিত খবরের সার-সংক্ষেপ

বিএনপির সমাবেশকে কেন্দ্র করে পুলিশের সঙ্গে বিক্ষিপ্ত সংঘর্ষ

প্রথম আলো
বিভাগ: রাষ্ট্রীয় বাহিনী

বিএনপি ‘গণতন্ত্র হত্যা দিবস’ উপলক্ষে ঢাকার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে সমাবেশ করছে। সমাবেশকে কেন্দ্র করে দলটির নেতা–কর্মীদের সঙ্গে পুলিশের বিক্ষিপ্ত সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষ শেষে এখন সমাবেশ চলছে। আজ বুধবার সকাল সাড়ে ১০টায় এই সমাবেশ শুরু হয়েছে।

২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোট ডাকাতি ও কারচুপির অভিযোগ এনে বিএনপি এই দিনকে ‘গণতন্ত্র হত্যা দিবস’ হিসেবে পালন করে আসছে। সে অনুযায়ী আজ বেলা ১১টায় এই সমাবেশ শুরু হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু সকাল ১০টা থেকেই প্রেসক্লাবের সামনে বিএনপির নেতা–কর্মীরা জড়ো হতে থাকেন। প্রেসক্লাবের সামনের সড়কে মেট্রোরেলের কাজ চলছে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা বিএনপি নেতাদের রাস্তার একপাশে রাখার চেষ্টা করছেন। জনগণের জানমালের নিরাপত্তায় এবং শৃঙ্খলা বজায় রাখার জন্য যারা বিশৃঙ্খল তাদের শৃঙ্খলাবদ্ধ হতে বলেছি। এর বাইরে কিছুই হয়নি। সরেজমিনে দেখা গেছে, বিএনপির সমাবেশকে ঘিরে প্রেসক্লাবের আশপাশের এলাকায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর বিপুলসংখ্যক সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। প্রেসক্লাবের সামনের সড়কে বিএনপির নেতা–কর্মীদের অবস্থানের কারণে যান চলাচল প্রায় বন্ধ হয়ে আছে। সকাল ১০টা ৫০ মিনিটে সচিবালয়ের পশ্চিম সড়ক হয়ে বিএনপির নেতা–কর্মীরা সমাবেশস্থলে আসতে চাইলে পুলিশ বাধা দেয়। নেতা–কর্মীরা বাধা অতিক্রম করে এগোতে চাইলে পুলিশ তাঁদের ওপর চড়াও হয়। পুলিশকে এ সময় বিএনপির নেতা–কর্মীদের লাঠিপেটা করতে দেখা যায়। একপর্যায়ে বিএনপির নেতা–কর্মীরাও পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছুড়তে থাকেন। এ সময় বিএনপির নেতা–কর্মীরা চারদিকে ছোটাছুটি শুরু করেন। পরে সমাবেশস্থল থেকে মাইকে সবাইকে শান্ত থাকার আহ্বান জানানো হয়। এর পাঁচ মিনিট পর পরিস্থিতি শান্ত হয়। সংঘর্ষ শেষে প্রেসক্লাবের বাইরে বিএনপির সমাবেশ আবার শুরু হয়েছে।

 

দুই কিডনি কেটে ফেলায় মৃত্যু রওশন আরার
অভিযুক্ত ৩ ডাক্তার ও সাবেক ওসির শাস্তির সুপারিশ

কালের কন্ঠ
বিভাগ: রাষ্ট্রীয় বাহিনী

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) রওশন আরা নামের এক নারীর কিডনি প্রতিস্থাপনের কথা বলে তা কেটে ফেলার কারণেই তার প্রাণহানি ঘটে বলে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের তদন্ত প্রতিবেদনে উঠে এসেছে। তদন্ত কমিটি দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগ এনে বিএসএমএমইউয়ের চিকিৎসক অধ্যাপক হাবিবুর রহমান দুলাল ও তাঁর সহকারী চিকিৎসক ফারুক হোসেন এবং ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের (ঢামেক) ফরেনসিক বিভাগের প্রধান সহযোগী অধ্যাপক ডা. সোহেল মাহমুদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় শাস্তির সুপারিশ করেছে। এ ছাড়া কমিটি এই ঘটনা তদন্তে দায়িত্বহীনতার অভিযোগ এনে শাহবাগ থানার সাবেক ওসির বিরুদ্ধে বিভাগীয় শাস্তির সুপারিশ করেছে।

২০১৮ সালের ৩১ অক্টোবর রওশন আরা নামের ওই রোগীর ক্ষতিগ্রস্ত একটি কিডনি অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে অপসারণ করতে গিয়ে ‘পরিকল্পিতভাবে’ দুটি কিডনি অপসারণের পর রোগীর মৃত্যু হয় বলে অভিযোগ ওঠে। ঘটনার দুই বছর পর ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন পেয়ে রওশনের ছেলে চলচ্চিত্র নির্মাতা রফিক সিকদার বিএসএমএমইউয়ের চার চিকিৎসককে আসামি করে রাজধানীর শাহবাগ থানায় হত্যা মামলা করেন। এদিকে এই ঘটনাকে সুয়োমোটো অভিযোগ (অভিযোগ নম্বর ৩০/৩২০) হিসেবে আমলে নেন জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান নাছিমা বেগম। এই প্রেক্ষাপটে জাতীয় মানবাধিকার কমিশন গত ২৪ নভেম্বর দুই সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে। তদন্ত শেষে কমিটি সম্প্রতি আদালতে তাদের মতামত ও সুপারিশ জমা দিয়েছে। ওই সুপারিশে বিএসএমএমইউয়ের দুই চিকিৎসককে ৭৫ লাখ টাকা ও ঢামেক ফরেনসিক বিভাগের প্রধানকে ২৫ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এ ছাড়া দায়িত্বে অবহেলার জন্য শাহবাগ থানার তৎকালীন ওসির বিরুদ্ধে শাস্তির সুপারিশ করা হয়েছে।

 

অভিনব ডাকাতি এএসআই গ্রেপ্তার

কালের কন্ঠ
বিভাগ: রাষ্ট্রীয় বাহিনী

সংঘবদ্ধভাবে ডাকাতিসহ নানা অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে নারায়ণগঞ্জ জেলার আড়াইহাজার থানার এএসআই মাসুম শেখকে (৩৩) ঢাকা গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) গ্রেপ্তার করেছে। মাসুমের গ্রামের বাড়ি গোপালগঞ্জের মুকসুদপুরে। মামলার নথিপত্র থেকে জানা যায়, আবদুল আওয়াল নামের এক মাদরাসা শিক্ষক গত ৮ সেপ্টেম্বর রামপুরার টিভি সেন্টারের সামনে দাঁড়িয়ে ছিলেন। তখন বাবু নামের এক ব্যক্তি আওয়ালের কাছে লেখাপড়া না জানা রিকশাচালক হিসেবে পরিচয় দেন। আওয়ালের কাছে ১০০ রিয়াল ভাঙানোর জন্য তিনি সাহায্য চান। কথিত রিকশাচালক বাবুর কথায় বিশ্বাস করে রিয়াল ভাঙিয়ে দিতে রাজি হন আওয়াল। মোট এক হাজার ৮৬০ রিয়াল ভাঙানোর জন্য তাঁকে অনুরোধ করেন বাবু। রিয়ালগুলো ভাঙিয়ে দিলে অর্ধেক টাকা আওয়ালকে দেওয়ার প্রস্তাবও দেন। তাঁদের রিয়ালগুলো বুঝিয়ে নেওয়ার জন্য আওয়ালকে রামপুরার লোহাজ হোটেলের সামনে আসতে বলেন বাবু ও হায়দার। প্রলোভনে পড়ে আওয়াল নিজের ব্যাংক হিসাব থেকে পাঁচ লাখ টাকা তুলে আসেন লোহাজ হোটেলের সামনে। তখন সেখানে একটি গাড়ি এসে থামে। গাড়ি থেকে নেমে তিনজন ব্যক্তি আওয়ালকে ডিবি পুলিশ হিসেবে পরিচয় দেন। আওয়ালকে জোর করে গাড়িতে তুলে হাতকড়া পরান এবং বিভিন্ন হুমকি দিতে থাকেন।

নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার মো. জায়েদুল আলম জানান, মাসুম দীর্ঘদিন ধরে ডাকাতি ও প্রতারণার কাজে লিপ্ত ছিল। গ্রেপ্তার হওয়ার আগে সে ছুটিতে ছিল। ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) বিভাগীয় কর্মকর্তা (লালবাগ) সহকারী পুলিশ কমিশনার (এসি) মো. ফজলুর রহমান জানান, চক্রটির প্রতারণার শিকার ভুক্তভোগীদের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে দীর্ঘদিন তদন্ত ও অনুসন্ধান চালাতে থাকেন তাঁরা। প্রযুক্তির সহযোগিতায় গত ৩ ডিসেম্বর বিকেলে রাজধানীর যাত্রাবাড়ী থেকে চক্রটির ১০ সদস্যকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে তাদের তথ্যের সূত্র ধরে ১৪ ডিসেম্বর চক্রটির মূল হোতা মাসুমকে গ্রেপ্তার করা হয়।

 

বাগাতিপাড়ায় সাধন হত্যাকাণ্ড
পিবিআই কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ঘুষ ও নির্যাতনের অভিযোগ

সমকাল
বিভাগ: রাষ্ট্রীয় বাহিনী

নাটোরের বাগাতিপাড়ায় পাঁচ বছর আগে এক ব্যক্তির লাশ উদ্ধারের তদন্ত ঘিরে তদন্তকারী পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ঘুষ গ্রহণ এবং নিরীহ মানুষদের নির্যাতন করে স্বীকারোক্তি আদায়ের অভিযোগ উঠেছে। ওই হত্যাকাণ্ডে দুই ব্যক্তির ‘স্বীকারোক্তি’ অনুযায়ী মাদরাসার সুপার, শিক্ষক, সরকারি চাকরিজীবী, ছাত্র, দিনমজুরসহ ১৭ জনকে অভিযুক্ত করে গত শুক্রবার আদালতে অভিযোগপত্র দেয় পুলিশ। এই তদন্ত প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান করে এবং পুলিশি হয়রানি, নির্যাতন ও অর্থ আদায়ের অভিযোগ এনে গত শুক্রবার মানববন্ধন ও ঝাড়ু মিছিল এবং সোমবার নাটোর শহরে একটি মিডিয়া হাউসে সংবাদ সম্মেলন করেছে এলাকাবাসী। হত্যা মামলা, সংবাদ সম্মেলন ও মানববন্ধন সূত্রে জানা যায়, ২০১৫ সালের ৩০ নভেম্বর বাগাতিপাড়া উপজেলার পাকা ইউনিয়নের ঝিনা গ্রামের রেললাইনের পাশ থেকে পাকা গ্রামের সাধন কর্মকারের লাশ উদ্ধার করে রেলওয়ে পুলিশ। এ ঘটনায় সাধনের ভাই সন্তোষ কুমার ঈশ্বরদী জিআরপি থানায় একটি মামলা করেন।

মামলার সন্দেহভাজন আসামি হিসেবে গত বছরের ৪ জানুয়ারি পাকা গ্রামের সমাসের আলীর ছেলে সোহাগ আলী ওরফে আয়াকে তিন দিনের রিমান্ডে নিয়ে বেধড়ক শারীরিক নির্যাতন করে বিভিন্নজনের নাম বলে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি আদায়ের চেষ্টা করেন। কিন্তু তিনি জবানবন্দি দিতে রাজি না হলে তাঁকে জেলহাজতে পাঠানো হয়। বর্তমানে জামিনে থাকা সোহাগ অভিযোগ করেন, এরপর এসআই সাইদুর তাঁকে ফোনে ডেকে নিয়ে মামলা থেকে তাঁর নাম বাদ দেবেন বলে ৫০ হাজার টাকা দিতে বাধ্য করেন। গত বছরের ১০ মে পাকা গ্রামের বারেক মণ্ডলের ছেলে জামশেদ, আবদুল কুদ্দুস সরকারের ছেলে রিংকু, মৃত ওয়াহেদ আলীর ছেলে আব্দুস সালামকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। পরে রিংকু ও সালামের কাছ থেকে এক লাখ ৬০ হাজার টাকা ও ৭০ হাজার টাকা নিয়ে তাঁদের ছেড়ে দেওয়া হয়।

 

ঘুষ নিয়ে আসামির নাম বাদ দেওয়ার অভিযোগ

সমকাল
বিভাগ: রাষ্ট্রীয় বাহিনী

সোনাগাজীতে মোটা অঙ্কের ঘুষ নিয়ে মামলা থেকে বিএনপি নেতার নাম বাদ দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে আদর্শগ্রাম পুলিশ ফাঁড়ির উপপরিদর্শক (এসআই) মোখলেছুর রহমানের বিরুদ্ধে। মামলার বাদী কামরুন নাহারের অভিযোগ, বিএনপি নেতাকে বাদ দিতে পুলিশ তাকে ধমক দিয়ে এবং তার ক্ষতি হবে বলে ভয় দেখিয়ে এজাহারে জোর করে স্বাক্ষর নিয়েছে। ঘটনার পরেই বাদী কামরুন নাহার প্রতিকার চেয়ে মডেল থানার ওসি সাজেদুল ইসলামকে বিষয়টি জানান।

বাদী কামরুন নাহার বলেন, পুলিশ ফাঁড়ির উপপরিদর্শক মোখলেছুর রহমান আমাকে জানান মামলার এফআইআর করতে হলে ত্রিশ হাজার টাকা লাগবে। তারপর আমি দু’দফায় তাকে বিশ হাজার টাকা দিই। টাকা নিয়ে তিনি আমাকে ধমক দিয়ে জানান গিয়াস বিএনপির বড় নেতা, তাকে আসামি করলে আপনাদের অনেক বড় ক্ষতি হবে। আমি গিয়াস উদ্দিনকে আসামি রাখার জন্য বললে তিনি রেগে গিয়ে গালমন্দ শুরু করে আমার ইচ্ছার বিরুদ্ধে এজাহারে স্বাক্ষর আদায় করেন। পরে আমি মডেল থানায় হাজির হয়ে পুরো ঘটনা ওসিকে জানালে তিনি আমাকে গিয়াস উদ্দিনের নাম উল্লেখ করে সম্পূরক এজাহার দায়েরের পরামর্শ দেন।

 

চিকিৎসকের সঙ্গে দুর্ব্যবহার
বরিশাল পুলিশকে বিএমএ’র আলটিমেটাম

যুগান্তর
বিভাগ: রাষ্ট্রীয় বাহিনী

বরিশাল মহানগর পুলিশকে (বিএমপি) ৪৮ ঘণ্টার আলটিমেটাম দিয়েছে বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন (বিএমএ)। মঙ্গলবার সংবাদ সম্মেলন করে বিএমএ নেতারা হুশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেছেন, এই সময়ের মধ্যে বিএমপি’র এসআই রিয়াজুলকে কোতোয়ালি মডেল থানা থেকে প্রত্যাহার করা না হলে মানববন্ধন, প্রাইভেট চেম্বার বন্ধ করে দেয়াসহ কঠোর কর্মসূচি দেয়া হবে। এদিন দুপুরে বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএ) জরুরি সভা শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা জানান সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক প্রফেসর ডা. মনিরুজ্জামান শাহিন। তিনি বলেন, বিএমএ’র জরুরি সভায় এসআই রিয়াজুলকে কোতোয়ালি থানা থেকে অন্যত্র সরিয়ে দেয়া, বিএমএ’র জেলা সভাপতির বিরুদ্ধে হয়রানিমূলক মামলা প্রত্যাহার এবং আগামীতে কোনো চিকিৎসককে হয়রানি না করার দাবি জানানো হয়েছে। এসব দাবি পূরণের জন্য ৪৮ ঘণ্টা সময় বেঁধে দেয়া হয়। তিনি বলেন, নির্ধারিত সময়ে দাবি পূরণ না হলে বরিশালের চিকিৎসকরা আন্দোলন কর্মসূচি ঘোষণা করবে। মানববন্ধন, চিকিৎসকদের প্রাইভেট চেম্বার বন্ধ রাখাসহ পর্যায়ক্রমে আরও কঠোর কর্মসূচি হাতে নেয়া হবে বলে জানান মনিরুজ্জামান শাহিন।

 

প্রকাশিত সংবাদের ব্যাখ্যা দিলেন পুলিশ সদস্য

কালের কন্ঠ
বিভাগ: রাষ্ট্রীয় বাহিনী

তিনি জানিয়েছেন সংবাদে উল্লেখিত গিয়াস উদ্দিন এবং রাজ উদ্দিনসহ কারো কাছ থেকেই অতিরিক্ত কোনো টাকা নেওয়া হয়নি। এই নামে দুই জনের পুলিশ ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেটের জন্য আবেদন পত্র তিনি পেয়েছিলেন। এর আগে তারা ক্লিয়ারেন্সের জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র প্রস্তুত করার জন্য (ব্যাংক চালান, জাতীয় পরিচয় পত্র, ছবি সত্যায়িত, অনলাইনে আবেদন) থানার বাহিরের একজনের কাছে ১৫০০ টাকা দিয়েছিলেন বলে তিনি সংবাদ প্রকাশের পর জানতে পেরেছেন। যার সাথে তার আদৌ কোনো সংশ্লিষ্টতা নেই।

 

চলচ্চিত্রে পুলিশের অবদানও দেখানো উচিত: সাবেক আইজিপি শহীদুল হক

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
বিভাগ: রাষ্ট্রীয় বাহিনী

দেশের আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা, অপরাধ দমন, মানুষের বিচার প্রাপ্তি নিশ্চিতে পুলিশের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ হওয়ায় চলচ্চিত্রে এই বাহিনীর ইতিবাচক অবদানও তুলে ধরা উচিত বলে মনে করেন পুলিশের সাবেক মহাপরিদর্শক এ কে এম শহীদুল হক।

‘নবাব এলএলবি’ চলচ্চিত্রে পুলিশের ভূমিকাকে ‘হেয় করে উপস্থাপনের জন্য’ পর্নোগ্রাফি মামলায় পরিচালক ও এক অভিনেতা গ্রেপ্তার হওয়ার পর এই অভিমত দিয়েছেন তিনি।

শহীদুল হক মঙ্গলবার বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “চলচ্চিত্রে শুধুমাত্র পুলিশের নেতিবাচক দিক উপস্থাপন না করে দেশের ক্রান্তিকালে পুলিশের অবদানের সাথেও দর্শকের পরিচয় ঘটানো উচিত। তা না হলে বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীর প্রতি প্রজন্ম থেকে প্রজন্মের মধ্যে একটা বিরূপ ধারণা সৃষ্টি হবে। এর ফলে পুলিশ সদস্যরাও তাদের মনোবল হারিয়ে ফেলে।” সাবেক এই পুলিশ প্রধান বলেন, “পুলিশ একটি দেশের গুরুত্বপূর্ণ সংস্থা এবং ফৌজদারি বিষয়ে একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ। পুলিশের সক্ষমতার উপর ভিত্তি করেই একটি দেশের বিচার ব্যবস্থার সফলতা ও ব্যর্থতা নির্ভর করে। এত বড় একটি ফোর্সের মধ্যে দুই-চারজনের নৈতিকতার স্খলন ঘটতে পারে এবং সেক্ষেত্রে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থাও নেওয়া হয়।

 

ডিসির মামলায় সাংবাদিক গ্রেপ্তার

কালের কন্ঠ
বিভাগ: ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্ট

কিশোরগঞ্জের জেলা প্রশাসক (ডিসি) ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দুই সাংবাদিকসহ তিনজনের নামে মামলা করেছেন। মামলা দায়েরের পর সোমবার রাত তিনটার দিকে শহরের উকিলপাড়ার বাসা থেকে প্রতিদিনের সংবাদ ও আনন্দ টিভির জেলা প্রতিনিধি আকিব হৃদয়কে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার আকিব হৃদয়কে আদালতের মাধ্যমে তাকে কিশোরগঞ্জ জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

জানা গেছে, সোমবার রাত সাড়ে ১২টায় কিশোরগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী বাদী হয়ে কিশোরগঞ্জ সদর মডেল থানায় মামলাটি দায়ের করেন। এতে দুই সাংবাদিক আকিব হৃদয়, মনোয়ার হোসেন রনি ও স্থানীয় যুবক মোস্তাফিজুর রহমানকে আসামি করা হয়।

মামলার এজহারে বলা হয়, সোমবার বিকেলের দিকে শহরের সার্কিট হাউজের সামনে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করছিলেন জেলা প্রশাসন কার্যালয়ে কর্মরত কয়েকজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট। এ সময় ড্রাইভিং লাইসেন্স ও হেলমেট ছাড়া মোটরসাইকেল চালানোর অপরাধে আকিব হৃদয়কে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. জুলহাস হোসেন সৌরভ। জরিমানা করার পর আকিব হৃদয় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের গালিগালাজ ও দেখে নেওয়ার হুমকি দেন। এ ঘটনার পর বিকেল পৌনে চারটার দিকে অভিযুক্ত তিনজন জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে ফেসবুক লাইভে এসে আজেবাজে মন্তব্যসহ জেলা প্রশাসকের বিষয়ে বাজে কথা ও মন্তব্য করেন। লাইভে আকিব হৃদয় দাবি করেন, মোবাইল কোর্ট পরিচালনার সময় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের ‘স্যার’ বলে সম্বোধন না করায় তাকে জরিমানা করা হয়।

কিশোরগঞ্জ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আবু বকর সিদ্দিক জানান, রাতে দুইজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের মাধ্যমে মামলার এজাহার পেয়ে মামলাটি রেকর্ড করা হয়।

 

 

বাংলা ট্রিবিউনে সংবাদ প্রকাশের পর জেলা পরিষদের সম্পত্তি উদ্ধারে অভিযান

বাংলা ট্রিবিউন
বিভাগ: গণমাধ্যম

অনলাইন নিউজ পোর্টাল বাংলা ট্রিবিউনে সংবাদ প্রকাশের পর দিনাজপুর জেলা পরিষদের কয়েক কোটি টাকার সরকারি জমি উদ্ধারে অভিযান শুরু করেছে প্রশাসন। ব্ল্যাক সার্কেল নামের ওই প্রতিষ্ঠানে উচ্ছেদ অভিযান চালিয়ে তাদের দ্বিতল ভবন ভেঙে দেওয়ার পাশাপাশি অবৈধভাবে দখল হওয়া জমি পুনঃউদ্ধার করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৯ ডিসেম্বর) দুপুরে শহরের মিস্ত্রিপাড়া এলাকায় এই উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করা হয়। অভিযানে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে উপস্থিত ছিলেন দিনাজপুর সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এএইচএম মাগফুরুল হাসান আব্বাসী।

গত ৮ অক্টোবর বাংলা ট্রিবিউনে ‘নিয়মে নেই তবুও লিজের জমিতে পাকা ভবন, চলছে পুকুর ভরাট’ শিরোনামে ছবিসহ সংবাদ প্রকাশিত হয়।

দিনাজপুরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) আবু সালেহ মাহফুজুল আলম বলেন, মূলত জমিটির উচ্ছেদ কার্যক্রম করেছে জেলা পরিষদ। আমাদের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি রক্ষার জন্য নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের দায়িত্ব পালন করেছেন।

 

পলাতক আসামির বক্তব্য গণমাধমে প্রচারে নিষেধাজ্ঞা হাইকোর্টের

নয়া দিগন্ত
বিভাগ: গণমাধ্যম

পলাতক আসামিদের বক্তব্য গণমাধ্যমে প্রচারের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে হাইকোর্ট। বুধবার দুর্নীতি দমন কমিশনের একটি আবেদনের শুনানির পর হাইকোর্ট এই আদেশ দেন।

এ ব্যাপারে দুর্নীতি দমন কমিশনের আইনজীবী খুরশীদ আলম খান বলেছেন, আদালতের আদেশে বলা হয়েছে, গণমাধ্যমে পি কে হালদারসহ পলাতক আসামিদের কোনো বক্তব্য, সাক্ষাৎকার ও সংবাদ প্রচার বা পুনঃ প্রচার করা যাবে না।

এর আগে সাজাপ্রাপ্ত আসামিদের বক্তব্য প্রচারের ওপরে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছিল আদালত। গত ২৮ ডিসেম্বর বাংলাদেশের একটি বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলে প্রায় সাড়ে তিন হাজার কোটি টাকা পাচারের অভিযোগ নিয়ে বিদেশে থাকা প্রশান্ত কুমার হালদারের (পি কে হালদার) একটি সাক্ষাৎকার প্রচারিত হয়।

মঙ্গলবার ওই সাক্ষাৎকার প্রচারের বিষয়টি আদালতের নজরে আনেন দুর্নীতি দমন কমিশনের আইনজীবী। তখন আদালত তাকে এই বিষয়ে লিখিত আবেদন দিতে বলেন। দুদকের আবেদনের জবাবে বুধবার শুনানির পর বিচারপতি মো: নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি আহমেদ সোহেলের ভার্চুয়াল বেঞ্চে এই আদেশ দেয়া হয়।

 

SAGAR-RUNI MURDER
Probe report submission deferred for 77th time

New Age
Catagory: Media

The date for submitting the investigation report in the case over the killing of journalist couple Sagar Sarowar and Meherun Runi was deferred for the 77th time on Tuesday.

Judge Rajesh Chowdhury of the Dhaka Metropolitan Magistrate’s Court on Tuesday set February 3 for submitting the investigation report.

The court deferred the date as the Rapid Action Battalion, assigned to investigate the case, failed to submit the report by Tuesday, said the court’s general recording officer for Sher-e-Bangla Nagar police station sub-inspector Asadur Rahman Asad.

Sagar, the then news editor of Maasranga Television, and Runi, senior reporter of ATN Bangla, were murdered at their rented flat at West Razabazar in Dhaka on February 11, 2012.

Since the murder of the journalist couple, journalist community has been demanding justice as the earliest. However, there has been almost no progress in the investigation despite repeated assurances from the authorities. On March 2, RAB additional superintendent of police Khandaker Shafiqul Alam, also the investigation officer of the case, in its progress report submitted to the attorney general’s office said that at least two unidentified men took part in the murder of the journalist couple. It said that RAB found DNA of the two unidentified people at the couple’s flat.

ছড়িয়ে দিনঃ
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •