Trial Run

হাইকোর্টের যুগান্তকারী রায় : ‘সরকার দুর্নীতির মামলা প্রত্যাহারে সুপারিশ করতে পারবে না’

দুর্নীতির অভিযোগে কোনো ব্যক্তির বিরুদ্ধে দায়ের করা কোনো মামলা সরকার প্রত্যাহার করতে পারবে না। শুধু তাই নয়, দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) করা কোনো মামলা প্রত্যাহারের সুপারিশও করা যাবে না বলে রায় দিয়েছেন হাইকোর্ট। বৃহস্পতিবার বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ এই  রায় দিয়েছে।

রায়ে হাইকোর্ট বলেন, ২০০৪ সালের সংশোধিত আইন অনুযায়ী দুর্নীতি দমন কমিশন একটি স্বাধীন ও স্বতন্ত্র সংস্থা। এর ফলে দুদকের অনুমোদিত কোনো মামলা প্রত্যাহারে কেউ কোনো হস্তক্ষেপ করতে পারবে না। দুদকের আইনজীবী খুরশিদ আলম খান হাইকর্টের এমন যুগান্তকারী রায়ের বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করে বলেছেন, ‘এ রায়ের মধ্য দিয়ে দুদকের মামলার বিষয়ে কোনো ধরনের নাক না গলানোর সর্তকবাতা দিয়েছেন উচ্চ আদালত। সরকার চাইলেও দুদকের মামলা প্রত্যাহারের সুপারিশ করতে পারবে না।’ এ বিষয়ে এটিই হাইকোর্টের প্রথম কোনো রায় বলেও  তিনি গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন।

সিলেটের এক ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ার‌ম্যানের বিরুদ্ধে ঢেউটিন চুরির অভিযোগে দুদকের দায়ের করা মামলায় বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট গত বৃহস্পতিবার (১০ ডিসেম্বর) এ রায় দিলেও বিষয়টি রোববার (১৩ ডিসেম্বর) গনমাধ্যমকে জানানো হয়েছে।

মামলার বিবরণে জানা যায়, বিগত ১/১১ এর পর আওয়ামী লীগ সরকার যখন ক্ষমতায় আসে তখন ফৌজদারিসহ অসংখ্য মামলা প্রত্যাহারের সুপারিশ করে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়। ফৌজদারি কার্যবিধির ৪৯৪ ধারা অনুযায়ী, এ মামলা প্রত্যাহারের আবেদন করা হয়। সেই সময় দুদকের মামলাও প্রত্যাহারের আবেদন করা হয়। তখন অনেক ফৌজদারি মামলা প্রত্যাহার হলেও দুদকের মামলায় আইনী প্রশ্ন জড়িত থাকার কারনে কোনো মামলা প্রত্যাহার হয়নি। কিন্তু ওই সময়ে সিলেটের ইউনিয়ন পরিষদের এক চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ৫টি টিন চুরির অভিযোগে দুদকের মামলা প্রত্যাহারের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয় সুপারিশ করে। আদালতও মামলাটি চুড়ান্তভাবে প্রত্যাহারের আদেশ দেন। এ ঘটনায় ২০১৬ সালে হাইকোটে রিভিশন আবেদন করে দুদক।

আবেদনে বলা হয়, যে প্রক্রিয়ায় এটি করা হয়েছে তা সঠিক আইন মেনে হয়নি। সে আবেদনের ওপর হাইকোট চূড়ান্ত রায় ঘোষণা করে বৃহস্পতিবার। রায়ে হাইকোর্ট বলেন, ২০০৪ সালের সংশোধিত আইন অনুযায়ী দুদক একটি স্বাধীন ও স্বতন্ত্র সংস্থা। এর ফলে দুদকের অনুমোদিত কোনো মামলা প্রত্যাহারের কেউ কোনো হস্তক্ষেপ করতে পারবে না।

রায়ের প্রতিক্রিয়ায় আসামির আইনজীবী এস এম শাহজাহান বলেন, দুদকের মামলা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় প্রত্যাহারের যে সুপারিশ করেছিল হাইকোর্ট তা বাতিল করেছেন। এখন থেকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বা সরকারের অন্য কোনো দফতর দুদকের মামলা প্রত্যাহারের সুপারিশ করতে পারবে না।ভুক্তভোগি চেয়ারম্যানের সাথে কথা বলে রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করা হবে কি না সে বিষয়ে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

এসডব্লিউ/নসদ/০৯৩০

ছড়িয়ে দিনঃ
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আপনার মতামত জানানঃ