Trial Run

মহামারিতে যুক্তরাজ্যে মাঙ্কি পক্সের হানা, স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা উদ্বিগ্ন

ছবি: বিবিসি

এক করোনায় রক্ষে নেই, এবার তার দোসর হয়ে যুক্তরাজ্যে তাণ্ডব চালাতে শুরু করেছে ‘মাঙ্কি পক্স’। ইতিমধ্যেই দেশটির উত্তর ওয়েসে ২ জনের শরীরে এই ভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়েছে। এমনটাই জানিয়েছেন ব্রিটেনের স্বাস্থ্যসচিব ম্যাট হ্যানকক। ফলে স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের কপালে চিন্তার ভাঁজ পড়েছে।

নতুন আতঙ্ক হিসেবে ‘মাঙ্কি পক্স’ মাথা চাড়া দেওয়ায় দেশটির স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষের ভেতর উদ্বেগ দেখা দিয়েছে বলে বিবিসিসহ দেশটির একাধিক সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে জানা যাচ্ছে।

আর কেউ আক্রান্ত হয়েছেন কিনা তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে পার্লামেন্টকে জানিয়েছেন সরকারের স্বাস্থ্যবিষয়ক পরামর্শদাতা রিচার্ড ফার্থ।

মাঙ্কি পক্স প্রথম আবিষ্কৃত হয়েছিল ১৯৫৮ সালে, যেখানে দুটি বানরের মতো গবেষণার জন্য রাখা বানরের একটি গ্রুপে বিস্ফোরণ ঘটেছিল।  এ কারণেই এই রোগটিকে পরে ‘মাঙ্কি পক্স’ নাম দেওয়া হয়েছিল।

১৯৭০ সালে আফ্রিকার কঙ্গোতে প্রথমবার মাঙ্কি পক্সের লক্ষণগুলো আবিষ্কার হয়েছিল। তার পর থেকে মানুষকে আক্রমণ করেছে এবং বেশ কয়েকটি আফ্রিকার দেশ বিশেষত মধ্য আফ্রিকা এবং পশ্চিম আফ্রিকাতে স্থানীয় আকার ধারণ করেছে। গত বছরও আফ্রিকার দেশ গণপ্রজাতন্ত্রী কঙ্গোতে মাঙ্কি পক্সের প্রাদুর্ভাবে ১০ জনের মৃত্যু হয়েছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, শুধু কঙ্গোতেই নয়, আফ্রিকা মহাদেশের আরও বেশ কয়েকটি দেশে মাঙ্কি পক্সের প্রকোপ শুরু হওয়ার খবর পাওয়া গিয়েছে। করোনার মধ্যে মাঙ্কি পক্স হানা দেওয়ায় পরিস্থিতি আরও জটিল হতে পারে।

আফ্রিকার বাইরে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ২০০৩ সালে, ব্রিটেন এবং ইসরায়েলে ২০০৮ সালে মাঙ্কি পক্স সংক্রমণ সনাক্ত হয়েছিল।

মাঙ্কি পক্স কী?

মাঙ্কি পক্স ভাইরাস এক ধরনের অর্থোপক্সভাইরাস, যার লক্ষণ গুটি বসন্তের মতো হলেও ততটা গুরুতর নয়। ১৯৮০ সালে বিশ্বের অধিকাংশ দেশ থেকে গুটি বসন্ত নির্মূল হলেও পশ্চিম আফ্রিকা ও মধ্য আফ্রিকায় মাঝেমধ্যেই মাঙ্কি পক্সের প্রকোপ দেখা যায়। রডেন্ট ও প্রাইমেট জাতীয় বন্যপ্রাণির মাধ্যমে মানুষের দেহে ছড়ায় এই ভাইরাস। তবে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, মানুষের শরীর থেকেও সংক্রমিত হতে পারে ভাইরাসটি।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার গবেষণায় বলা হয়েছে, মাঙ্কি পক্স আক্রান্তের মধ্যে তরুণ ও যুবক বেশি। চিকিৎসা ঠিকমতো না হলে মৃত্যু হতে পারে।গণপ্রজাতন্ত্রী কঙ্গো সরকার এরই মধ্যে জনা দশেক রোগীর মৃত্যু নিশ্চিত করেছে।

মাঙ্কি পক্স রোগ সংক্রমণে জানা যায়, সংক্রামিত প্রাণী বা মানুষের সংস্পর্শের মাধ্যমে মাঙ্কি পক্স ভাইরাস সংক্রমণ হতে পারে। ভাইরাস শ্বাস নালীর মাধ্যমে বা ত্বকের ক্ষতগুলির মাধ্যমে শরীরে প্রবেশ করতে পারে।

এই ভাইরাসটি সাধারণত ইঁদুর, কাঠবিড়ালি, বানর, খরগোশ, কুকুর এবং কর্কুপিনের মতো প্রাণী দ্বারা বাহিত হয়। বন্য পশুর মাংস সেবন করা প্রাণী থেকে মানুষের মধ্যে মাঙ্কি পক্স ভাইরাস সংক্রমণ সংক্রমণেরও এক উপায়।

আফ্রিকাতে যে মাঙ্কি পক্সের প্রকোপ দেখা দিয়েছে তা হল সংক্রমিত ইঁদুর এবং বানরের মাংস শিকার, ত্বক, রান্না করা এবং খাওয়ার সাথে সম্পর্কিত।

মাঙ্কি পক্স রোগের লক্ষণসমূহ

ভাইরাস শরীরে প্রবেশের প্রায় ১-২ সপ্তাহের মধ্যে একজন ব্যক্তি মাঙ্কি পক্সের লক্ষণগুলি দেখতে পারে। মাঙ্কি পক্স রোগের কয়েকটি লক্ষণ হল:

  • কাঁপুনি জ্বর
  • মাথা ব্যাথা
  • পেশী ব্যথা
  • লিম্প
  • গলা ব্যথা

জ্বরের ২-৩ দিন পরে, চিকেনপক্সের মতো ত্বকে একটি ফুসকুড়ি দেখা দিতে শুরু করে, এটি হল লালচে, স্বচ্ছ স্থিতিযুক্ত তরল, পুঁজে ভরপুর স্থিতিস্থাপকতা বা নোডুলগুলি ভরা। ফুসকুড়ি সাধারণত সারা শরীর জুড়ে ছড়িয়ে পড়ে।

যুক্তরাষ্ট্রের সিডিসি বলছে, এতে আক্রান্ত হওয়ার ১২ দিন পর মাথা ও পেশিতে ব্যথা, ক্লান্তি ভাব দেখা দেবে।  তিন দিন পর থেকে দেহে র‌্যাশ হবে। হালকা জ্বরের সঙ্গে র‌্যাশ ধীরে ধীরে সারা শরীরে ছড়িয়ে পড়বে। চুলকানিও হবে। শারীরিক ক্লান্তি থাকবে ২-৪ সপ্তাহ।

মাঙ্কি পক্সের চিকিৎসা এবং প্রতিরোধ

এখনও অবধি মাঙ্কি পক্সের জন্য নির্দিষ্ট কোনও চিকিৎসা নেই। রোগীরা এই রোগে আক্রান্ত হওয়ার পরে সাধারণত ২-৪ সপ্তাহের মধ্যেই নিজেকে সারিয়ে তুলতে পারেন।

এখন পর্যন্ত দেওয়া চিকিৎসা কেবল লক্ষণগুলি হ্রাস করার জন্য। যদিও মাঙ্কি পক্সের লক্ষণগুলি খুব বেশি গুরুতর হয় না তবে রোগীকে হাসপাতালে ভর্তি করা উচিত। কিছু ক্ষেত্রে, মাঙ্কি পক্স ক্রমবর্ধমান পরিস্থিতি অনুভব করাতে পারে, জটিলতা সৃষ্টি করতে পারে এবং এমনকি মৃত্যুর কারণও হতে পারে। তবে, এটি খুব কমই ঘটে।

এখন অবধি, মাঙ্কি পক্সগুলি রোধ করার জন্য কোনও নির্দিষ্ট টিকা নেই। এই রোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি হ্রাস করার জন্য ব্যক্তিগত স্বাস্থ্যবিধি এবং পরিবেশ বজায় রাখা একটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ।

সিডিসি জানাচ্ছে যে, এই রোগের বিশেষ কোনও ওষুধ নেই। তবে এর সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ করতে গুটিবসন্তের টিকা সিডোফোভির, এসটি-২৪৬ এবং ভ্যাকসিনিয়া ইমিউন গ্লোবিউলিন ব্যবহার করা যেতে পারে।

মাঙ্কি পক্সকে রোধ করতে পারে এমন কয়েকটি উপায়:

  • মাঙ্কি পক্সে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা করা প্রাণীদের সাথে যোগাযোগ এড়িয়ে চলুন।
  • বুনো পশুর মাংস এবং সেসব মাংস খাওয়া এড়িয়ে চলুন যা রান্না করা হয় না।
  • নিরাময় না হওয়া অবধি মাঙ্কি পক্স ভুক্তভোগীদের জন্য যত্ন নিতে হবে এবং বিচ্ছিন্ন করে রাখতে হবে।
  • পরিষ্কার এবং স্বাস্থ্যকর জীবনযাপন বাস্তবায়ন করুন, সাবান এবং পানি ব্যবহার করে যত্নে হাত ধুতে হবে।
  • মাঙ্কি পক্সে আক্রান্তদের সাথে ঘনিষ্ঠ যোগাযোগের সময় গ্লোভস এবং মাস্কের মতো ব্যক্তিগত সুরক্ষামূলক সরঞ্জাম ব্যবহার করুন।

এই রোগের বিস্তার এড়ানোর জন্য গুচ্ছ বানর প্রতিরোধ সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ। যদি কেউ মাঙ্কি পক্সের সংস্পর্শে আসেন তবে হাসপাতালের একজন চিকিৎসকের দ্বারা চিকিৎসা করা দরকার, যাতে তার অবস্থা পর্যবেক্ষণ করা যায়।

এসডব্লিউ/এমএন/কেএইচ/২১৩৫ 


State watch সকল পাঠকদের জন্য উন্মুক্ত সংবাদ মাধ্যম, যেটি পাঠকদের অর্থায়নে পরিচালিত হয়। যে কোন পরিমাণের সহযোগিতা, সেটি ছোট বা বড় হোক, আপনাদের প্রতিটি সহযোগিতা আমাদের নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার ক্ষেত্রে ভবিষ্যতে বড় অবদান রাখতে পারে। তাই State watch-কে সহযোগিতার অনুরোধ জানাচ্ছি। 

ছড়িয়ে দিনঃ
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আপনার মতামত জানানঃ