Trial Run

হাইকোর্টে জামিন পেলেন ইরফান সেলিম, মুক্তিতে বাধা নেই

ছবি: সংগৃহীত

রাজধানীর ধানমন্ডিতে নৌবাহিনীর এক কর্মকর্তাকে মারধরের অভিযোগে দায়ের করা মামলায় ঢাকা-৭ আসনের সংসদ সদস্য হাজী সেলিমের ছেলে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের বরখাস্ত হওয়া ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোহাম্মদ ইরফান সেলিমের জামিন মঞ্জুর করেছেন হাইকোর্ট।

বৃহস্পতিবার (১৮মার্চ)  দুপুরে হাইকোর্টের বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন সেলিম ও বিচারপতি মো. বদরুজ্জামানের সমন্বয়ে গঠিত ভার্চুয়াল বেঞ্চ এ আদেশ দেন। আদেশের কপি হাতে পাওয়ার পর সাংসদপুত্রের কারামুক্তি পেতে বাধা নেই বলে জানিয়েছেন এই মামলার আসামিপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট সাঈদ আহমেদ রাজা।

এছাড়া হাইকোর্ট থেকে জামিনের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ড. মো. বশির উল্লাহ। এর আগে বাংলাদেশ নৌবাহিনীর এক কর্মকর্তাকে হত্যাচেষ্টার মামলায় ইরফান সেলিমকে কেন জামিন দেয়া হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছিলেন হাইকোর্ট। দুই সপ্তাহের মধ্যে সংশ্লিষ্টদেরকে সেই রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছিল। গত ২৭ জানুয়ারি হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট বেঞ্চ এ রুল জারি করেছিলেন।

গতবছর ২৫ অক্টোবর নৌবাহিনীর লেফটেন্যান্ট ওয়াসিফ আহমদ খান মোটরসাইকেলে করে যাচ্ছিলেন। এ সময় হাজী সেলিমের ছেলে ইরফান সেলিমের গাড়িটি তাকে ধাক্কা মারে। এরপর তিনি সড়কের পাশে মোটরসাইকেলটি থামিয়ে গাড়ির সামনে দাঁড়ান এবং নিজের পরিচয় দেন। তখন গাড়ি থেকে ইরফানের সাথে থাকা অন্যরা একসঙ্গে তাকে কিল-ঘুষি মারেন এবং মেরে ফেলার হুমকি দেন। তার স্ত্রীকে অশ্লীল ভাষায় গালগালও করেন তারা।

এরপর ২৬ অক্টোবর সকালে ইরফান সেলিম, তার বডিগার্ড মো. জাহিদুল মোল্লা, এ বি সিদ্দিক দিপু এবং গাড়িচালক মিজানুর রহমানসহ অজ্ঞাত দু-তিনজনকে আসামি করে ধানমন্ডি থানায় মামলা করেন ওয়াসিফ আহমদ খান। ওই দিনই পুরান পুরান ঢাকার সোয়ারিঘাটের দেবীদাস লেইনে হাজী সেলিমের বাড়ি ঘেরাও করে অভিযান চালায় র্যাব। আটক করা হয় ইরফান ও তার দেহরক্ষী মোহাম্মদ জাহিদকে।

ওই ভবন থেকে দুটি অবৈধ পিস্তল, গুলি, একটি এয়ারগান, ৩৭টি ওয়াকিটকি, একটি হাতকড়া এবং বিদেশি মদ ও বিয়ার উদ্ধার করার কথা সে সময় র্যাবের পক্ষ থেকে জানানো হয়। মদ আর ওয়াকিটকির জন্য ইরফান ও তার দেহরক্ষী জাহিদকে তাৎক্ষণিকভাবে ছয় মাস করে এক বছরের কারাদণ্ড দেয় ভ্রাম্যমাণ আদালত। দেবীদাস লেনে ওই অভিযানের মধ্যেই চকবাজারের আশিক টাওয়ারে ইরফানের ‘নির্যাতন কেন্দ্রের’ সন্ধান পাওয়ার কথা জানায় র্যাব। পরে ইরফান সেলিমকে কারাগারে পাঠানো হয়। অস্ত্র ও মাদক আইনে আলাদা মামলা দায়ের করা হয়। ওয়ার্ড কাউন্সিলরের পদ থেকেও বরখাস্ত হন তিনি।

র্যাবের ওই অভিযানের পর রাজধানীসহ আশপাশের এলাকায় হাজী সেলিমের ‘দখলদারিত্বের’ খবর আসতে থাকে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে। দুদকের পক্ষ থেকে বলা হয় তারাও হাজী সেলিমের ‘অবৈধ সম্পদ’ অনুসন্ধানে তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করছে।

ইরফান ও তার দেহরক্ষীর বিরুদ্ধে দায়ের করা র্যাবের মামলার এজাহারে বলা হয়েছিল, গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে পুরান ঢাকায় ইরফানদের বাড়িতে সেই অভিযান চালানো হয়। ভবনের চতুর্থ তলা থেকে জাহিদুল মোল্লাকে একটি বিদেশি পিস্তল ও ৪০৬টি ইয়াবাসহ গ্রেফতার করা হয়। আর চতুর্থ তলার অপর একটি কক্ষ থেকে একটি বিদেশি পিস্তল এবং ইরফান সেলিমের কক্ষ থেকে ১২টি বিয়ারের ক্যান উদ্ধার করা হয়।

অন্যদিকে তদন্ত প্রতিবেদনে পুলিশ বলেছে, আগ্নেয়াস্ত্র বা মদ ও মাদক যে ইরফান সেলিমের, সে বিষয়ে সন্দেহাতীত কোনো প্রমাণ তারা পায়নি।

মানুষের মনে ইরফান সেলিমের এই অব্যাহতি নিয়ে নানা প্রশ্ন আছে বলে মনে করেন মানবাধিকার কর্মী নূর খান৷ তিনি বলেন, ‘‘র‌্যাব ও থানা পুলিশ দুটিই পুলিশের অধীন দুইটি সংস্থা৷ এই ঘটনায় তাদের ভূমিকা এখন পরস্পরবিরোধী৷ দুই পক্ষ একই সঙ্গে সঠিক হতে পারেনা৷ তিনি বলেন, ‘‘আমরা মনে হয়েছে এটা নির্দেশিত বা আজ্ঞাবহ তদন্ত৷ যেভাবে নির্দেশ দেয়া হয়েছে সেভাবে তদন্ত হয়েছে৷’’

নূর খান মনে করেন, ‘‘শুধু এই একটি ঘটনাই নয়৷ আমরা এভাবে আরো অনেক আজ্ঞাবহ তদন্ত দেখতে পাচ্ছি৷ দেশের মানুষকে এই ধরনের আজ্ঞাবহ তদন্ত থেকে মুক্তি দিতে হবে৷’

সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, পূর্ব থেকেই ধারণা করা হয়েছিল, যে শোরগোল তুলে এমপিপুত্র কাউন্সিলর ইরফান সেলিমের বিরুদ্ধে মামলা হলো তা সময়ের ব্যবধানে ক্রমশ বিলীন হয়ে যাবে। এখানে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী জনগণের জন্য কাজ করে না৷ তারা ক্ষমতারই পক্ষে কাজ করে৷ শুধু মাত্র ক্ষমতার দ্বন্দ্বে তারা একটি পক্ষে সক্রিয় হয়৷ সাধারণ মানুষের জন্য নয়৷ এখানে প্রতিকার পেতে ক্ষমতা লাগে৷ যার ক্ষমতা বেশি সেই অন্যায় করে৷ অথচ আইন অন্যদের ক্ষেত্রে একদমই ভিন্ন চিত্র দেখায়।

ক্ষমতার অপব্যবহার করে প্রায়ই বিভিন্ন অপরাধ কর্মকাণ্ডের জড়িয়ে পড়েন এমপি পুত্ররা। তাদের বিরুদ্ধে প্রশাসন ও সরকার প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে আগ্রহবোধ না করায় তাদের দৌরাত্ম্য ‍দিন দিন বেড়ে চলেছে, যার  সর্বশেষ উদাহরণ এমপিপুত্র ইরফান সেলিম। তারা মনে করেন, আমাদের রাষ্ট্রে বিচারের এই বৈষম্য দূর না হলে দেশ থেকে অনিয়ম-দুর্নীতি ও অন্যায়-অপকর্ম হ্রাস পাবে না।

এসডব্লিউ/এমএন/ এফএ/১৩০০

ছড়িয়ে দিনঃ
  • 10
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    10
    Shares

আপনার মতামত জানানঃ