Trial Run

মাদ্রাসার শিশু শিক্ষার্থীকে নির্মম নির্যাতন শিক্ষকের, ভিডিও ভাইরাল

ছবি: সংগৃহীত

মঙ্গলবার ৯ মার্চ রাতে হঠাৎই ফেসবুক নিউজফিডে শিশুর চিৎকার। সাত-আট বছরের এক শিশুকে ঘাড় ধরে টেনে-হেঁচড়ে নিয়ে যাচ্ছে জোব্বা-টুপি পরিহিত এক প্রাপ্তবয়স্ক ব্যক্তি। ঘরে নিয়ে তাকে নির্মমভাবে পেটালেন তিনি। পেটানোর সময় শিশুটিকে ঘরের এ-প্রান্ত থেকে ও-প্রান্তে আছড়ে ফেললেন। এরপর সারারাত ফেসবুকে একের পর এক পোস্টে ভাইরাল ভিডিও। জানা যায়, ঘটনাটি হাটহাজারির এক মাদ্রাসার। শিশুটির মা দেখা করে ফিরে যাওয়ার সময় শিশুটি মায়ের পিছে পিছে বাইরে গেছে, সেটাই অপরাধ!

এ সময় শিক্ষার্থীদের কেউ একজন ওই ঘটনার ভিডিও ফেসবুকে আপলোড করলে, নির্মম নির্যাতনের প্রতিবাদে সরব হয়ে উঠেন নেটিজেনরা।

ব্লগার ও অনলাইন অ্যাকটিভিস্ট আরিফ জেবতিক তার ফেসবুক ওয়ালে ঘটনার ভিডিও শেয়ার করে লিখেন, ‘এই অমানবিকতার বিরুদ্ধে কথা বলা নিষেধ!’

বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতির মহাসচিব মোজাম্মেল হক চৌধুরী লিখেন, ‘এসব শিক্ষক নামধারীরা মানুষ না পশু? এরা কি মানুষ গড়ার কারিগর না মানুষ মারার কারিগর? এই নিরীহ শিশু বাচ্চাটির উপর তার এত রাগ, এত ক্রোধ কেন?’

ফেসবুক ব্যবহারকারী সাজ্জাদ মাহমুদ লিখেন, ‘ছাত্র দোষ করলে এভাবে মারধর কখনো শাসন হতে পারে না। এখানে যা করা হয়েছে তা পুরোপুরি জুলুম। কর্তৃপক্ষের উচিত যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া।’

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বলেন, ‘অভিযুক্ত মাদরাসা শিক্ষককে আটক করার পরপরই নির্যাতিত শিশুটির মা-বাবা আমার কাছে এসে কান্নাকাটি শুরু করেন। দুইজন আমার অফিসে এসে ওই শিক্ষককে ছেড়ে দিতে অনুরোধ করেন। তারা ওই শিক্ষককে ক্ষমা করে দিয়েছেন জানিয়ে হাফেজ ইয়াহিয়ার বিরুদ্ধে মামলা করবেন না বলে জানান। আমি তাদের অনেক বোঝানোর পরও তারা মামলা করতে রাজি হয়নি। উল্টো তারা ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নিতে আমাকে লিখিতভাবে অনুরোধ করেছেন। পরে আমরা ওই শিক্ষককে ছেড়ে দিয়েছি।’

লিখিত চিঠিতে শিশুটি মা-বাবা উল্লেখ করেন, ‘মঙ্গলবার বিকাল ৫টায় ফরহাদকে দেখতে মাদ্রাসায় যাই। দেখা করে চলে আসার সময় ফরহাদ আমাদের পেছনে পেছনে ছুটে আসে। এরপর হেফজ বিভাগের শিক্ষক হাফেজ ইয়াহিয়া এসে ফরহাদকে ধরে নিয়ে যায়। রুমে নিয়ে তাকে বেধড়ক পিটিয়েছে। যা অত্যন্ত নিন্দনীয় কাজ। এই ঘটনায় আমরা দুই জন খুবই মর্মাহত। এরপরও আমরা আমাদের সন্তানের শিক্ষকের বিরুদ্ধে আইনগত কোনও পদক্ষেপ গ্রহণ করবো না। তাই আটককৃত শিক্ষককে ছেড়ে দেওয়ার বিনীত অনুরোধ করছি।’

কেন আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন না এ বিষয়ে জানতে চাইলে শিশুটির বাবা গণমাধ্যমকে বলেন, ‘ব্যক্তিগত কোনও স্বার্থ থেকে তিনি আমার সন্তানকে মারধর করেননি। যিনি আমার সন্তানকে পড়িয়েছেন, তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া উচিত মনে হয়নি। তাই তাকে ছেড়ে দিতে অনুরোধ করেছি।’

নির্যাতিত শিশুটির পরিবার না চাইলে ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের সুযোগ নেই বলে জানিয়েছেন হাটহাজারী থানার ওসি রফিকুল ইসলাম। তিনি বলেন, ‘কারও বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হলে সাক্ষী প্রয়োজন। সাক্ষ্য-প্রমাণ ছাড়া কারও বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা যায় না। এ কারণে ওই শিক্ষককে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।’

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রতিবাদ এসেছে এই ঘটনারও। এস এম রাশেদুল ইসলাম চৌধুরী লিখেছেন, ‘সত্যিই অবাক হলাম আমাদের সহজ-সরল ধর্মভীরু মা-বাবা দেখে! বেহেস্তের লোভে হুজুর নামের এসব জল্লাদ কশাইর হাতে সন্তানকে সঁপে দিচ্ছে!’

লোভা হোসাইন লিখেছেন, ‘বাচ্চাটা বড় হয়ে ওই মা-বাবাকে ক্ষমা করলেই হয়।’

কুতুব উদ্দিন চৌধুরী নামে একজন লিখেছেন, ‘ফৌজদারি অপরাধ ঘটলে এর শাস্তি বিধান করা রাষ্ট্রের দায়িত্ব ও কর্তব্য।’

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, কওমী মাদরাসাগুলোতে এভাবে নির্মম নির্যাতন নিয়মিত ঘটনা। কিন্তু কেউ অভিযোগ দায়ের করেন না। এটিও সমাজের বৈকল্যতা। ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে এহেন ঘটনা একদিকে যেমন মেনে নেওয়া যায় না অন্যদিকে লোকসমাজেও ধর্মীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, শিক্ষক ও ছাত্রদের বিষয়ে নেতিবাচক মনোভাব তৈরী হচ্ছে। তারা বলেন, ধর্মীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে গিয়েও যদি সন্তান নিরাপদ না থাকে তবে অভিভাবকের মনে ধর্মীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বিষয়ে আতঙ্ক তৈরি হবে।

এসডব্লিউ/এমএন/ এফএ/১৩৫৮

ছড়িয়ে দিনঃ
  • 173
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    173
    Shares

আপনার মতামত জানানঃ