Trial Run

নারী দিবস : ‘পরিবর্তন আসে চ্যালেঞ্জ থেকে’

ক্লারা জেটকিন (বায়ে) ও রোজা লুক্সেমবার্গ (ডানে)

মীর মোনাজ হক

আন্তর্জাতিক নারী দিবসে এবারের প্রতিপাদ্য “চ্যালেঞ্জ নির্ধারণ করুন”

পরিবর্তন আসে চ্যালেঞ্জ থেকে – এবং এটিই হ’ল আন্তর্জাতিক নারী দিবস ২০২১ এর বার্তা, আয়োজকরা এই বার্তা প্রচারের মাধ্যমে সোমবার দিনটিকে মুখরিত করছেন।

আন্তর্জাতিক নারী দিবসের ওয়েবসাইট বলছে, “একটি চ্যালেঞ্জিত বিশ্ব একটি সতর্ক বিশ্ব।” “আমরা সকলেই লিঙ্গ পক্ষপাত এবং অসাম্যকে চ্যালেঞ্জ জানাতে এবং আহ্বান করতে বেছে নিতে পারি।”

আয়োজকরা বলছেন, সরকার, কর্মক্ষেত্র, স্বাস্থ্যসেবা, খেলাধুলা এবং মিডিয়া কভারেজের ক্ষেত্রে জেন্ডার প্যারিটি ব্যক্তিগত পরিবর্তনের মাধ্যমে অর্জনযোগ্য। তারা আশা করেন যে আন্তর্জাতিক নারী দিবসের জন্য এবারের থিম – #ChooseToChallenge – এই চ্যালেঞ্জ মানুষকে উদ্বুদ্ধ করবে, ব্যক্তি পক্ষপাতদুষ্টতা, প্রশ্নবিদ্ধ ধরণ এবং বিশ্বজুড়ে নারীদের অর্জনগুলি উদযাপনে এগিয়ে যেতে।

বিগত বছরগুলিতে, আন্তর্জাতিক নারী দিবসটি বিশ্বব্যাপী উৎসব, ম্যারাথন এবং অন্যান্য সাংস্কৃতিক ইভেন্টের সাথে পালিত হয়েছিল। তবে এবছর করোনা মহামারীর কারণে বেশিরভাগ ইভেন্ট ভার্চুয়াল পালিত হচ্ছে।

আন্তর্জাতিক নারী দিবস কি?
১৯১১ সালে শুরু হওয়ার পর থেকে আন্তর্জাতিক নারী দিবস এক শতাব্দীরও বেশি সময় ধরে পালিত হয়ে আসছে। এই দিনটি বিশ্বব্যাপী নারীদের সামাজিক, অর্থনৈতিক, সাংস্কৃতিক এবং রাজনৈতিক সাফল্যকে স্বীকৃতি দেয় এবং এটি লিঙ্গ সমতার জন্য পদক্ষেপ গ্রহণের আহ্বান জানায়।

কোনও সরকার, কর্পোরেশন, সংস্থা বা মিডিয়া সত্তা এর একক অধিকার দাবি করতে পারে না।

আন্তর্জাতিক নারী দিবসের ইতিহাস কী?
জার্মানির সোশ্যাল ডেমোক্রেটিক পার্টির নেত্রী ক্লারা জেটকিন ও কমিউনিস্ট নেত্রী রোজা লুক্সেমবার্গ নারীদের ভোটাধিকারের দাবিতে ‘তাদের সংঘটিত করে প্রথম সোচ্চার দাবি তোলেন ১৯ মার্চ ১৯১১ সালে এক আন্তর্জাতিক অনুষ্ঠানে, একই দিনে প্রত্যেক দেশে একটি নারী দিবস উদযাপনের পরামর্শ দিয়েছেন। এই নারী দিবসটি ১৯১১ সালের ১৯ মার্চ অস্ট্রিয়া, ডেনমার্ক, জার্মানি এবং সুইজারল্যান্ডে প্রথম পালিত হয়েছিলো। মূল উদ্দেশ্য ছিলো নারী ভোটাধিকার এবং প্রথম মহাযুদ্ধের ভয়াবহতা ঠেকানো। বিশ্বযুদ্ধের বিরুদ্ধে ইউরোপ জুড়ে অভিযানগুলি অন্যান্য দেশের নারীদের আন্তর্জাতিক মহিলা দিবস পালন করার জন্য অনুপ্রাণিত করেছিল।

আনুষ্ঠানিক তারিখটি পরবর্তীতে ১৯১৩ সালে ৮ ই মার্চে পালিত হয়েছিল। বহুদিন পরে জাতিসংঘ ১৯৭৫ সালে প্রথমবারের মতো আন্তর্জাতিক নারী দিবস উদযাপন করে এবং সেই থেকে ৮ ই মার্চ একটি বার্ষিক থিম নিয়ে প্রতিবছর ঐতিহ্যপূর্ণভাবে নারী দিবস পালন করা হয়।

জার্মানির বার্লিন রাজ্যসহ কয়েকটি ফেডারেল স্টেটে আন্তর্জাতিক নারীদিবস সরকারী ছুটির দিন হিসেবে পালন হচ্ছে গত দু’বছর থেকে। আজ জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা মের্কেল এক বক্তব্যের মাধমে জার্মানিতে সমান অধিকার প্রশংশা করে তাঁর ক্যবিনেটের অর্ধেক পুরুষ সদস্যকেও শুভেচ্ছা জানালেন। উল্লেখযোগ্য যে, মের্কেলের মন্ত্রী সভায় মোট ১৫ জন মন্ত্রীর মধ্যে ৭ জনই নারী। বর্তমানে জার্মান পার্লামেন্টে সর্বমোট ৭০৯ জন সাংসদ এর মধ্যে ২২৪ জন নারী, অর্থাৎ ৩৬.৩% নারী সাংসদ, তারা সবাই সরাসরি নির্বাচিত। কোনো নারীকে পুরুষের করুনায় (কোটায়) সাংসদ বানানো হয়নি। তাই নারীদিবসে আশা করবো বাংলাদেশেও কমপক্ষে ৩০% সাংসদ সরাসরি জনগনের ভোটে নির্বাচিত হয়ে আসবেন।

ছড়িয়ে দিনঃ
  • 18
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    18
    Shares

আপনার মতামত জানানঃ