Trial Run

লিঙ্গবৈষম্য সূচকে দক্ষিণ এশিয়ায় সবার ওপরে বাংলাদেশ

ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের (ডব্লিউইএফ) প্রতিবেদন

ছবি: সংগৃহীত

নারী-পুরুষের সমতার দিক থেকে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে সবচেয়ে ভালো অবস্থানে আছে বাংলাদেশ। ৫০ বছর আগে যে পাকিস্তানের কাছ থেকে বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছিল সে দেশটির অবস্থা দক্ষিণ এশিয়াতে এ সূচকে সবার নিচে। আর ভারত চারটি সূচকের মধ্যে তিনটিতেই পেছনে পড়েছে বাংলাদেশের। ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের (ডব্লিউইএফ) বৈশ্বিক লিঙ্গবৈষম্য প্রতিবেদনে ২০২০ এসব তথ্য উঠে এসেছে।

ডব্লিউইএফ প্রতিবেদেন অনুযায়ী, লিঙ্গবৈষম্য সূচকে বাংলাদেশ ৭২.৬০ পয়েন্ট পেয়ে বৈশ্বিক অবস্থান ৫০। আর দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে ১ নম্বরে। বাংলাদেশের পরেই ৬৮ পয়েন্ট নিয়ে নেপাল দক্ষিণ এশিয়াতে দুই ও বৈশ্বিক অবস্থানে ১০১ রয়েছে। ৬৮ পয়েন্ট নিয়ে দক্ষিণ এশিয়াতে শ্রীলঙ্কা ৩ নম্বরে অবস্থানে ও বৈশ্বিক অবস্থান ১০২ নম্বরে আছে। এরপরেই দক্ষিণ এশিয়াতে ভারতের অবস্থান ৪ নম্বরে আর ৬৮.৮ পয়েন্ট নিয়ে বৈশ্বিক অবস্থান আছে ১১২ নম্বরে। ৬৪.৬ পয়েন্ট নিয়ে দক্ষিণ এশিয়াতে ৫ নম্বরে আর বৈশ্বিক অবস্থানে ১২৩ নম্বরে আছে মালদ্বীপ। ভুটান ৬৩.৫ পয়েন্ট নিয়ে দক্ষিণ এশিয়াতে ৬ নম্বরে আর বৈশ্বিক অবস্থানে ১৩১ অবস্থানে। এ সূচকে দক্ষিণ এশিয়ায় তলানিতে বা ৭ নম্বরে আছে পাকিস্তান। দেশটি ৫৬.৪ পয়েন্ট নিয়ে বৈশ্বিক অবস্থানে ১৫১ নম্বরে।

আজ ৮ মার্চ আন্তর্জাতিক নারী দিবস। জাতিসংঘ দিবসটি পালন শুরু করে ১৯৭৫ সাল থেকে। পৃথিবীর অধিকাংশ দেশেই নারী দিবস পালিত হয়। জার্মানির বামপন্থি পার্টির নেতা ক্লারা জেটকিন ১৯১০ সালে ‘ইন্টারন্যাশনাল সোশ্যালিস্ট ওম্যান কনফারেন্স’ বছরের একটি দিনকে সমাজে নারীর অবদানকে তুলে ধরার জন্য পালনের প্রস্তাব দেন। এরপরের বছর যুক্তরাষ্ট্রে ৮ মার্চ নারী দিবস হিসেবে পালন করা হয়। এরপর অস্ট্রিয়া, ডেনমার্ক, জার্মানি ও সুইজারল্যান্ডে দিবসটি পালিত হয়। ১৯১৭ সালে রুশ বিপ্লবের পরে সোভিয়েত ইউনিয়ন, চীনসহ পূর্ব ইউরোপের সমাজতান্ত্রিক দেশগুলোতে ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনার সঙ্গে নারী দিবস পালন করা হয়।

বাংলাদেশেও দিবসটি পালিত হয়। বাংলাদেশে স্বাধীনতার পর গত ৫০ বছরে নারীর অগ্রগতি কতটা হয়েছে তা নিয়ে বিতর্ক থাকলেও সামগ্রিকভাবে আগের চেয়ে অবস্থা বদলেছে। সামগ্রিকভাবে বাংলাদেশে নারীর অবস্থা আগের চেয়ে বদলেছে তা বৈশ্বিক লিঙ্গবৈষম্য চারটি প্রধান সূচকে দেখলেই বোঝা যায়। এগুলো হলো, নারীর অর্থনৈতিক অংশগ্রহণ ও সুযোগ, শিক্ষায় অংশগ্রহণ, স্বাস্থ্য ও আয়ু এবং রাজনৈতিক ক্ষমতায়ন। নারী-পুরুষের সমতার দিক থেকে সারা বিশ্বে বাংলাদেশ এখন ৫০তম অবস্থানে রয়েছে। এই প্রতিবেদনে ১৫৩টি দেশের মধ্যে নারী-পুরুষের সমতার চিত্র দেখা হয়েছে।

বৈশ্বিক লিঙ্গবৈষম্য প্রতিবেদন চারটি সূচকের অধীনে ১৪টি উপসূচক রয়েছে। এর মধ্যে চারটি উপসূচকে বাংলাদেশ বিশ্বের সব দেশের ওপরে স্থান পেয়েছে। এই চারটি উপসূচক হলো, ছেলে ও মেয়েশিশুদের বিদ্যালয়ে ভর্তি, মাধ্যমিকে ছেলে ও মেয়েদের সমতা, জন্মের সময় ছেলে ও মেয়েশিশুর সংখ্যাগত সমতা ও সরকারপ্রধান হিসেবে কত সময় ধরে একজন নারী রয়েছেন। শিক্ষায় অংশগ্রহণ সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান সারা বিশ্বে ১২০ নম্বর।

নারী-পুরুষের সমতার দিক থেকে রাজনৈতিক ক্ষমতায়নে বিশ্বে বাংলাদেশের অবস্থান ৭ নম্বরে। এ সূচকে ভারতের বৈশ্বিক অবস্থান ১৮। স্বাস্থ্য ও আয়ু এই সূচকে স্বাস্থ্যকর জীবনযাপনে বাংলাদেশের অবস্থান ১১০। আর এ সূচকে ভারতের বৈশ্বিক অবস্থান ১৫০।

সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের বৈশ্বিক লিঙ্গবৈষম্য সূচকে আমরা এগিয়েছি অনেকটা এটা সত্য। কিন্তু সামগ্রিকভাবে নারী-পুরুষের বৈষম্য বিলোপে আমরা এখনো বহু পিছিয়ে আছি। নারী স্বাস্থ্যে বাংলাদেশ এগিয়েছে, শিক্ষায় এগিয়েছে। আবার দেখা যাচ্ছে বাল্যবিবাহের হার যদি বেড়ে যায়, তাহলে আমাদের নারীর সামগ্রিক পরিস্থিতি খারাপ হবে। সমাজে পুরুষ যে চোখে নারীকে দেখে তা পরিবর্তন না করলে নারী পুরুষের সমতাভিত্তিক সমাজ গঠন সম্ভব না। বাংলাদেশে সবত্র এখনো প্রবল পুরুষতান্ত্রিক দৃষ্টিভঙ্গি দ্বারা পরিচালিত হয়। সবার আগে এটির অবসান ঘটাতে হবে। এর জন্য বাংলাদেশকে এখনো অনেক দূর পাড়ি দিতে হবে বলে তাদের মত।

এসডব্লিউ/এমএন/ এফএ/১৬৩০

ছড়িয়ে দিনঃ
  • 1
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    1
    Share

আপনার মতামত জানানঃ