Trial Run

আইনপ্রয়োগের চিত্র ও গণমাধ্যম: ৪ মার্চ, ২০২১

স্টেটওয়াচ রিসার্চ নেটওয়ার্ক কাজ করছে বাংলাদেশে আইনপ্রয়োগের সার্বিক চিত্র তুলে ধরার পাশাপাশি মতপ্রকাশের স্বাধীনতা সংক্রান্ত বাস্তবতা নিয়ে। এর অংশ হিসেবে স্টেটওয়াচ নিউজে আমরা প্রতিদিনকার আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতা ও গণমাধ্যম সংক্রান্ত খবরাখবরগুলো সংক্ষেপে তুলে ধরার উদ্যোগ নিয়েছি। প্রতিদিন নিম্নোক্ত মাধ্যমসমূহ থেকে সংবাদগুলো সংগ্রহ ও তা নথিবদ্ধ করছে আমাদের কর্মীরা: প্রথম আলো, কালের কণ্ঠ, যুগান্তর, সমকাল, নয়া দিগন্ত, ইত্তেফাক, দেশ রূপান্তর, ডেইলি স্টার, নিউ এজ, দ্য ফিনান্সিয়াল এক্সপ্রেস, বাংলা ট্রিবিউন, বিডিনিউজ২৪ ডটকম, আমাদের সময়, মানবজমিন। আমরা আশা করি, এই প্রতিবেদন নিয়মিত প্রকাশের মাধ্যমে জনগণের তথ্যপ্রাপ্তির অধিকার আরো শক্তিশালী হবে।

৪ মার্চ, ২০২১ বৃহস্পতিবার, ১৯ ফাল্গুন ১৪২৭ পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও গণমাধ্যম সংক্রান্ত নির্বাচিত খবরের সার-সংক্ষেপ।

 

শুদ্ধি অভিযানের মধ্যেই পুলিশের ছিনতাইকাণ্ড

 

কালের কন্ঠ

বিভাগ: রাষ্ট্রীয় বাহিনী

পুলিশকে জনমুখী ও আস্থাশীল বাহিনী হিসেবে গড়ে তুলতে চলছে ‘শুদ্ধি অভিযান’। মাদক, হয়রানি, নির্যাতনসহ যেকোনো অপরাধে জড়িত পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে কঠোর শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে এখন। আগের চেয়ে বাড়ছে বিভাগীয় শাস্তি ও গুরুদণ্ড। এমন এক পরিস্থিতিতে কক্সবাজারের পুলিশ সদস্যদের ছিনতাইয়ের ঘটনায় নতুন করে তোলপাড় শুরু হয়েছে। কক্সবাজারে মেজর (অব.) সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খানকে হত্যার পর গণবদলির মাধ্যমে উন্নত সেবা দেওয়ার পরিকল্পনা নেওয়ার পর এই ঘটনা সবাইকে বিস্মিত করেছে।

জেলা পুলিশ দ্রুত আইনি ব্যবস্থা নিলেও একাধিক সূত্র জানিয়েছে, গত ১ মার্চ কক্সবাজার শহর পুলিশ ফাঁড়ির দায়িত্বপ্রাপ্ত উপপরিদর্শক (এসআই) নুর-ই খোদা সিদ্দিকী ছিনতাইকাণ্ডে জড়িত হওয়ার আগে থেকেই ছিলেন বেপরোয়া। সিনহা হত্যার কিছুুদিন আগে কক্সবাজারে বদলি হয়ে যাওয়ার কারণে তখন তাঁকে বদলি করা হয়নি। চকরিয়া থানা থেকে কক্সবাজারে বদলি হয়ে আসা নুর পুরনো কর্মকর্তা হিসেবে দাপটের সঙ্গে অপকর্ম চালাচ্ছিলেন।

 

সড়কে আহতদের তাৎক্ষণিক চিকিৎসা দেবে ট্রাফিক পুলিশ

 

বাংলা ট্রিবিউন

বিভাগ: রাষ্ট্রীয় বাহিনী

সড়ক দুর্ঘটনায় আহত ব্যক্তিদের তাৎক্ষণিক চিকিৎসা দিতে ‘প্রাথমিক চিকিৎসা প্রশিক্ষণ’ কোর্স সম্পন্ন করেছেন ডিএমপির মতিঝিল ট্রাফিক বিভাগের ১০০ জন পুলিশ সদস্য।

বুধবার (৩ মার্চ) ডিএমপি সদর দফতরে প্রশিক্ষণার্থীদের মাঝে প্রধান সনদপত্র বিতরণ করেন ডিএমপির অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম) মনিরুল ইসলাম।

মনিরুল ইসলাম বলেন, এই প্রশিক্ষণের ফলে সড়কে যেকোনও দুর্ঘটনায় আহত ব্যক্তিদের তাৎক্ষণিক চিকিৎসা দিতে পারবে ট্রাফিক পুলিশের সদস্যরা। আমি বিশ্বাস করি এই ট্রেনিংয়ের ফলে তারা আরও বেশি আত্মবিশ্বাসী হয়ে উঠবে। এছাড়াও প্রাথমিক চিকিৎসার জন্য আইসিআরসির দেওয়া বিভিন্ন সরঞ্জাম সড়কে আহত ব্যক্তিদের সেবায় কাজে আসবে।

 

অপরাধী জামাল, সাজা খাটলো কামাল

 

সমকাল

বিভাগ: রাষ্ট্রীয় বাহিনী

২০১৯ সালের ২০ নভেম্বর মাদক আইনে দুই ব্যক্তিকে দুই বছর করে কারাদণ্ড দেন কুমিল্লার একটি আদালত। তারা হলেন- কুমিল্লার দাউদকান্দির আলমগীর হোসেন ও নারায়ণগঞ্জের চর সৈয়দপুরের জামাল হোসেন। রায় ঘোষণার সময় জামাল হোসেন পলাতক থাকায় তাকে গ্রেপ্তারের জন্য কুমিল্লার পুলিশ সুপারের কার্যালয় থেকে নারায়ণগঞ্জ পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে গ্রেপ্তারি পরোয়ানার কাগজ পাঠানো হয়।

পুলিশ সুপারের কার্যালয় থেকে সেই কাগজ যায় নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানায়। কিন্তু থানা থেকে ‘জামাল’ এর নাম ঘষামাজা করে ‘কামাল’ লিখে গত ১৭ ফেব্রুয়ারি তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। এরপর কামাল হোসেনকে সাজা ভোগের জন্য কুমিল্লা পাঠানো হলে বেরিয়ে আসে আসল রহস্য। সেখানে গিয়ে জানা যায়, সাজাপ্রাপ্ত প্রকৃত ব্যক্তির নাম জামাল হোসেন। তবে জামাল ও নিরপরাধ কামাল উভয়ের বাবার নাম সুরুজ মিয়া।

 

বিএনপি ভেবে আ’লীগ কর্মীদের লাঠিচার্জ, ২ এসআই প্রত্যাহার

 

সমকাল

বিভাগ: রাষ্ট্রীয় বাহিনী

খুলনায় বিএনপি নেতাকর্মী ভেবে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের লাঠিচার্জ করায় সদর থানার দুই উপ পরিদর্শককে (এসআইকে) প্রত্যাহার করা হয়েছে। বুধবার বিকেল সাড়ে ৫টায় খুলনা বিএনপি কার্যালয়ের সামনে এ ঘটনা ঘটে। সেখানে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করছিলেন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। একপর্যায়ে তারা বিএনপি নেতা শামসুজ্জামান দুদুর কুশপুত্তলিকা দাহ করেন। প্রত্যাহার করা দুই পুলিশ কর্মকর্তা হলেন- সদর থানার এসআই মিয়া রব ও এসআই মোমিনুর রহমান।

প্রত্যক্ষদর্শী, পুলিশ ও আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, সিটি মেয়র তালুকদার আবদুল খালেককে নিয়ে অশালীন বক্তব্যের প্রতিবাদে বিকেল ৫টায় বিক্ষোভ মিছিল এবং পিকচার প্যালেস মোড়ে শামসুজ্জামান দুদুর কুশপুত্তলিকা দাহ কর্মসূচি ঘোষণা করে নগরীর ২১ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ। নির্ধারিত সময়ে মিছিলটি শুরু হয়। এতে ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও নগর আওয়ামী লীগ নেতা শামসুজ্জামান মিয়া স্বপন, আওয়ামী লীগের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকসহ নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

 

কারাগারে কয়েদিকে নির্যাতনের অভিযোগে মামলা, পিবিআইকে তদন্তের নির্দেশ

 

বাংলা ট্রিবিউন

বিভাগ: রাষ্ট্রীয় বাহিনী

কারাগারে রূপম কান্তি নাথ নামে এক হাজতিকে বৈদ্যুতিক শক ও বিষাক্ত ইনজেকশন পুশ করার অভিযোগে দায়ের করা মামলা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। বৃহস্পতিবার (৪ মার্চ) তার স্ত্রীর দায়ের করা অভিযোগটি মামলা হিসেবে গ্রহণ করে চট্টগ্রাম মহানগর দায়রা জজ শেখ আশফাকুর রহমানের আদালত এ আদেশ দিয়েছেন। মহানগর পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অ্যাডভোকেট মো. ফখরুদ্দিন চৌধুরী এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে গত সোমবার (১ মার্চ) চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারের জেল সুপারসহ চার জনকে আসামি করে রূপম কান্তি নাথের স্ত্রী ঝরনা রানী আদালতে নালিশি মামলা করেন। মঙ্গলবার (২ মার্চ) ওই অভিযোগের বিষয়ে শুনানি হয়। ওই দিন চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট হোসেন মোহাম্মদ রেজার আদালত উপযুক্ত আদালতে মামলা করতে আবেদনটি ফেরত পাঠান। এরপর বৃহস্পতিবার মহানগর দায়রা জজ শেখ আশফাকুর রহমানের আদালত মামলাটি গ্রহণ করে পিবিআইকে তদন্তের নির্দেশ দেন।

 

দশ মাস পর কারামুক্ত কার্টুনিস্ট কিশোর

 

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম

বিভাগ: ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন

বৃহস্পতিবার বেলা সোয়া ১২টার দিকে কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার-২ থেকে কিশোরকে মুক্তি দেওয়া হয় বলে জেল সুপার আবদুল জলিল জানান। তিনি বলেন, “জামিনের কাগজপত্র আমরা ১১টার দিকে পেয়েছি। সেগুলো যাচাই-বাছাই শেষে কিশোরকে মুক্তি দেওয়া হয়েছে।”কিশোরের মুক্তির সময় তার কয়েকজন আত্মীয়-বন্ধু কারাগারের বাইরে অপেক্ষায় ছিলেন। কারাফটক থেকে বেরিয়ে আসার পর বেলা সাড়ে ১২টার দিকে একটি সাদা রঙের গাড়িতে করে তিনি চলে যান।

এ সময় কারাগারের বাইরে থাকা সাংবাদিকদের সঙ্গে কোনো কথা বলেননি তিনি। বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের ভার্চুয়াল হাই কোর্ট বেঞ্চ বুধবার কিশোরকে ছয় মাসের জন্য জামিন দিলে তার মুক্তির পথ খোলে।

 

মুশতাকের মৃত্যুর বিচার ও ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিলের দাবিতে ৬৬ লেখকের বিবৃতি

 

দ্যা ডেইলি স্টার

বিভাগ: ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন

লেখক মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর বিচার ও ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের বিলোপ চেয়ে বিবৃতি দিয়েছেন দেশের স্বনামধন্য ৬৬ লেখক। বিবৃতিতে তারা বলেছেন, ‘লেখক ও উদ্যোক্তা মুশতাক আহমেদের মৃত্যু সারা দেশবাসীর মতো আমাদেরও মর্মাহত করেছে, বিক্ষুব্ধ করেছে। ইন্টারেনেটের সামাজিক মাধ্যমে কেবল একটি কার্টুন শেয়ার করার জন্য ও কিছু স্ট্যাটাস লেখার জন্য তার বিরুদ্ধে কুখ্যাত ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করা হয়। এরপর টানা নয় মাস তিনি বিনাবিচারে কারাগারে বন্দি ছিলেন। ছয়বার তার জামিন নাকচ হয়েছে। অবশেষে, ২৫ ফেব্রুয়ারি কারাগারেই তার মৃত্যু হয়।’

এতে আরও বলা হয়েছে, ‘বাংলাদেশে হত্যার আসামির দণ্ড মওকুফ হয় অথবা দ্রুত জামিন হয়, ঋণখেলাপি ও আর্থিক খাত থেকে লুটপাটকারীরা ধরাছোঁয়ার বাইরে থাকে, হাজার-কোটি টাকা বিদেশে পাচারকারী সহজেই দেশ ছাড়তে পারে, কিন্তু ফেসবুকে সরকারবিরোধী কিছু লেখা যেন তার চাইতে বড় অপরাধ!’

 

Protesters give government until Mar 26 to revoke Digital Security Act

 

The Financial Express

Category: Digital Security Act

Demonstrators protesting for Mushtaq Ahmed have demanded that the Digital Security Act be repealed by Mar 26 following the writer’s death in jail pending trial after he was arrested on charges pressed under the law, reports bdnews24.com. Nagorik Somaj, a platform of different organisations led by Zafrullah Chowdhury, trustee of the Gonoshasthaya Kendra, raised the demand on Wednesday and called on Prime Minister Sheikh Hasina to consider it. Led by Zafrullah in a wheelchair, the protesters marched towards the Prime Minister’s Office from the National Press Club. On being stopped by the police near Hotel InterContinental, the protesters staged a rally there.

 

BNP describes Mushtaq’s death as state-sponsored murder

 

Dhaka Tribrune

Category: Digital Security Act

BNP secretary general Mirza Fakhrul Islam Alamgir on Thursday alleged that the killing of writer Mushtaq Ahmed was “carried out by the state”.

The BNP secretary general came up with the allegation at a rally in front of the Jatiya Press Club protesting the death of writer Mushtaq and Noakhali journalist Borhanuddin Mozakkir in infighting between two factions of Awami League. Jubo Dal organised the rally.

“Writer Mushtaq Ahmed was killed keeping him in jail unjustifiably after his arrest under the Digital Security Act. We said in the very beginning that it is a state-sponsored assassination,” said the BNP leader. He also said BNP is demanding a judicial probe into the killing.

“Not only one person, around 700 people have been arrested under the act. All, from 5 year-old children to housewives have been arrested just for criticising the government or drawing cartoons ….our journalists are the worst victims.”

ছড়িয়ে দিনঃ
  • 1
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    1
    Share

আপনার মতামত জানানঃ