Trial Run

সুইস ব্যাংকে বাংলাদেশি কার কত টাকা, সেই তালিকা কি পাওয়া সম্ভব?

ছবি: সংগৃহীত

বিশেষ প্রতিনিধি:  গত ২৮ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশি বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান থেকে সুইজারল্যান্ডের বিভিন্ন ব্যাংকে (সুইস ব্যাংক) গোপনে কার কত টাকা পাচার করে পাঠানো হয়েছে বা আছে তার তথ্যসহ তালিকা চেয়েছেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে পাচার হওয়া ওইসব টাকা ফেরত আনতে কী কী পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে তাও জানতে চেয়েছেন আদালত। প্রতিবেদন দাখিলের পরে এ বিষয়ে পরবর্তী শুনানির জন্য আগামী ৩০ মার্চ দিন ধার্য করেছেন আদালত। কিন্তু প্রশ্ন হলো, বাংলাদেশের পক্ষে আদৌ কি এই তালিকা এবং টাকা ফিরে পাওয়া সম্ভব?

বাংলাদেশ ব্যাংকের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন কর্মকর্তা বিবিসি বাংলাকে বলছেন, সুইজারল্যান্ডের আইনি ব্যবস্থার কারণে সেদেশের ব্যাংকগুলোয় কাদের কি পরিমাণ অর্থ রয়েছে, এমন তথ্য বাংলাদেশি কর্তৃপক্ষের কাছে নেই।

তবে তারা ধারণা করেন, ব্যবসায়ী থেকে শুরু করে অবৈধ পথে অর্জিত কালো টাকার মালিকরাই মানি লন্ডারিংয়ের মাধ্যমে দেশের বাইরে টাকা নিয়ে গিয়ে সুইস ব্যাংকে জমা করছেন।

সুইজারল্যান্ডের কেন্দ্রীয় ব্যাংক সুইস ন্যাশনাল ব্যাংক (এসএনবি) ২০২০ সালের জুন মাসে যে বার্ষিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে, তাতে দেখা যাচ্ছে, ২০১৯ সালে সেখানকার ব্যাংকগুলোতে বাংলাদেশিদের জমা রাখা অর্থের পরিমাণ ৫ হাজার ৩৬৭ কোটি টাকা।

সুইস ন্যাশনাল ব্যাংকের প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, ২০১৯ সালে দেশটির বিভিন্ন ব্যাংকে বাংলাদেশিদের জমা করা অর্থের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৬০ কোটি ৩০ লাখ ফ্রাঁ। বাংলাদেশি মুদ্রায় যার পরিমাণ প্রায় ৫ হাজার ৩৬৭ কোটি টাকা। ২০১৮ সাল শেষে যার পরিমাণ ছিল প্রায় ৬২ কোটি সুইস ফ্রাঁ, বাংলাদেশি মুদ্রায় যা ৫ হাজার ৫১৮ কোটি টাকা (বাংলাদেশি মুদ্রায় এক সুইস ফ্রাঁর বিনিময়মূল্য ৮৯ টাকা ধরে এ হিসাব করা হয়েছে)।

বাংলাদেশ থেকে নানাভাবে অবৈধ উপায়ে পাচার হওয়া অর্থ যেমন সুইজারল্যান্ডের বিভিন্ন ব্যাংকে জমা হয়, তেমনি বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বসবাসকারী বাংলাদেশি নাগরিকেরাও দেশটিতে অর্থ জমা রাখেন। তাই সুইজারল্যান্ডের ব্যাংকে থাকা বাংলাদেশিদের মোট অর্থের মধ্যে বৈধ–অবৈধ সব অর্থই রয়েছে।

সুইজারল্যান্ডের ব্যাংকে বাংলাদেশিদের গচ্ছিত রাখা অর্থের পরিমাণ জানা গেলেও, দেশটির আইন অনুযায়ী, কারা এসব অর্থ রেখেছেন, তা কখনো প্রকাশ করেনি সেদেশের ব্যাংক। এর কারণ হিসাবে রয়েছে ব্যাংকের গোপনীয়তার কঠোর নীতি।

সারা বিশ্ব থেকেই অসংখ্য মানুষ সুইজারল্যান্ডের ব্যাংকগুলোতে বৈধ-অবৈধ পথে উপার্জিত অর্থ রেখে থাকেন। সুইস ব্যাংকে টাকা-পয়সা রাখতে সারা দুনিয়ার মানুষ সবচেয়ে বেশি আগ্রহ বোধ করে থাকে তাদের গোপনীয়তার নীতির কারণে। সুইজারল্যান্ডের একটি আইন দ্বারা এই গোপনীয়তা স্বীকৃত, যার ফলে ব্যাংকগুলো কোন অবস্থাতেই তাদের গ্রাহকদের তথ্য প্রকাশ করতে কারো কাছে বাধ্য থাকে না। ফলে কে কেন বা কীভাবে উপার্জিত অর্থ ব্যাংকে রাখছে, সেই গ্রাহকদের সম্পর্কে ব্যাংকগুলো কাউকে কোন তথ্য দেয় না।

এই আইন বদল করতে হলে সেটা গণভোট অথবা পার্লামেন্টে পাল্টাতে হবে। তবে এই আইনের মধ্যে একটি বিশেষ ধারাও রয়েছে। যার ফলে বিশেষ কোন পরিস্থিতিতে, যেমন জনস্বার্থে যদি কোন গ্রাহকের হিসাবের তথ্য প্রকাশ করার প্রয়োজন হয় অথবা প্রতারণা বা জালিয়াতি উদঘাটনে আইনানুগ কর্তৃপক্ষের অনুরোধে ব্যাংক গ্রাহকদের তথ্য দিতে পারে।

অ্যাসোসিয়েশন অব সুইস প্রাইভেট ব্যাংকার্স এর প্রধান মিশেল ডি রবার্ট কয়েক বছর আগে বিবিসির কাছে ব্যাখ্যা করছিলেন, কিভাবে এই গোপনীয়তার নীতি কাজ করে। তিনি বলেছিলেন, একজন ডাক্তার বা আইনজীবী যেভাবে তার রোগী বা মক্কেলের গোপনীয়তা বজায় রাখেন, এখানেও ব্যাপারটা তাই।

তিনি বলেন, ‘একজন সুইস ব্যাংকার তার গ্রাহকের কোন তথ্য কাউকে দিতে বাধ্য নন, এটা রীতিমত নীতি এবং আইন বিরুদ্ধ।’

ঠিক এ কারণেই সুইজারল্যান্ড হয়ে উঠেছে বিশ্বের ব্যাংকিং সেবার এক বড় কেন্দ্র। তিনশ’র উপরে ব্যাংক এবং আর্থিক সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান আছে সেখানে। এর মধ্যে সবচেয়ে বড় দুটি ব্যাংক হচ্ছে ক্রেডিট সুইস এবং ইউবিএস।

তবে সুইস ব্যাংকগুলোতে বেনামী হিসাব খোলার সুযোগ নেই। কোন ব্যাংক গ্রাহকের একাউন্টটি হয়তো সংখ্যা দিয়ে চিহ্নিত থাকবে, কিন্তু গ্রাহকের আসল পরিচয় ব্যাংকের অল্প কয়েকজন কর্মকর্তা অবশ্যই জানবেন।

সুইস ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশনের ওয়েবসাইটে বলা হচ্ছে, গোপনীয়তার অধিকার সুইস আইন ব্যবস্থার অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ এবং ফেডারেল সংবিধান দ্বারা তা সুরক্ষিত।

তবে কোন অপরাধের ক্ষেত্রে এই সুরক্ষা কাজ করবে না। অর্থাৎ সেখানে গচ্ছিত অর্থ যদি কোন অপরাধের সঙ্গে সম্পর্কিত হয়, তাহলে সেক্ষেত্রে গ্রাহকের পরিচয় প্রকাশে কোন বাধা নেই।

সুইস ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশনের ওয়েবসাইটে বলা হয়, “অপরাধের তদন্তের ক্ষেত্রে সুইস ব্যাংকগুলো তাদের গ্রাহকদের পরিচয় প্রকাশে বাধ্য, সেই অপরাধ সুইজারল্যান্ডেই হোক, আর অন্য কোন দেশেই হোক।”

তবে সেজন্য সেসব অপরাধে ওই গ্রাহকের সম্পৃক্ত থাকার প্রমাণ দেখাতে হবে।

দুর্নীতিবিরোধী আন্তর্জাতিক সনদ অনুযায়ী, সুইস কেন্দ্রীয় ব্যাংক গত কয়েক বছর যাবৎ সেদেশে বিভিন্ন দেশের নাগরিকদের জমাকৃত অর্থের পরিমাণ প্রকাশ করছে। সুইস কেন্দ্রীয় ব্যাংক কেবল কোন দেশের নাগরিকরা সেদেশের ব্যাংকে কি পরিমাণ অর্থ রেখেছেন সেই তথ্যটাই প্রকাশ করেছে। তবে গচ্ছিত রাখা অর্থের পরিমাণ জানা গেলেও, দেশটির আইন অনুযায়ী, কারা এসব অর্থ রেখেছেন, তা কখনো প্রকাশ করেনি সেদেশের ব্যাংক।

এসব টাকার বিষয়ে তথ্য জানতে এর আগে বিভিন্ন সময়ে আলোচনা হয়েছে। এবারই প্রথম নয়, আদালত এর আগেও সুইস ব্যাংকে রাখা বাংলাদেশি বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান থেকে গোপনে কার কত টাকা পাচার করে পাঠানো হয়েছে বা আছে তার তথ্যসহ তালিকা চেয়েছেন। এখনো সে তালিকা সংগ্রহ করা সম্ভব হয়নি।

বাংলাদেশ ব্যাংক অর্থ মন্ত্রণালয়কে জানিয়েছিল, সুইজারল্যান্ডের ব্যাংকগুলোর নিরাপত্তা এবং সুইজারল্যান্ডে কর অব্যাহতি পাওয়ার বিষয়গুলো বিবেচনায় নিয়ে বিভিন্ন দেশের নাগরিকরা সুইস ব্যাংকগুলোতে অর্থ গচ্ছিত রাখতে বেশি স্বাচ্ছ্যন্দবোধ করে। পৃথিবীর বেশির ভাগ দেশের নাগরিকেরই সুইস ব্যাংকগুলোতে অ্যাকাউন্ট রয়েছে। বাংলাদেশি নাগরিকদেরও সুইজারল্যান্ডের বিভিন্ন ব্যাংক হিসাবে কিছু অর্থ গচ্ছিত রয়েছে। তবে এ ক্ষেত্রে তাদের মধ্যে কতজন বাংলাদেশে বসবাসকারী এবং কতজন অনাবাসী বাংলাদেশি, সে সংখ্যা নিশ্চিত হওয়ার কোনো সুযোগ না থাকায় সরাসরি বাংলাদেশ থেকে কার কতো টাকা সুইস ব্যাংকগুলোতে জমা হয়েছে—এ বিষয়ে নিশ্চিত হওয়া যায় না।

সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞরা বলেন, সুইস ব্যাংকে বাংলাদেশের ব্যাংক, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও বিভিন্ন ব্যক্তির টাকা রয়েছে এটি সত্য। তবে কোন ব্যাংকের কত টাকা আছে, কোন প্রতিষ্ঠানের কত টাকা আছে, তা যেহেতু সুনির্দিষ্ট করা যাচ্ছে না, তাই কোন খাতের কত টাকা তা স্পষ্ট করে বলা সম্ভব নয়।

বাংলাদেশের দুর্নীতি দমন কমিশনের পক্ষ থেকে বাংলাদেশ ব্যাংককে চিঠি দিয়ে তাগাদা দেয়া হয়েছে যেন তারা ভারত বা যুক্তরাজ্যের মতো সুইস ব্যাংকের সঙ্গে তথ্য বিনিময়ের একটি সমঝোতা স্মারক করে।

দুদকের চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ গত বছর বিবিসি বাংলার সংবাদদাতা কাদির কল্লোলকে বলেছিলেন, যদিও সংশ্লিষ্ট আইনে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী ছাড়া অন্য কারও বিদেশে অর্থ পাচারের বিষয়ে তাদের দেখার ক্ষমতা নাই। এরপরও তিনি বাংলাদেশ ব্যাংককে চিঠি দিয়ে সুইজারল্যান্ডের ব্যাংকে বাংলাদেশিদের অর্থ সম্পর্কে তথ্য জানার জন্য সমঝোতার উদ্যোগ নেয়ার অনুরোধ জানিয়েছিলেন।

তবে বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, সেরকম কোন সমঝোতা এখনো সুইস ব্যাংকের সঙ্গে বাংলাদেশ ব্যাংকের হয়নি।

ব্যাংকার সৈয়দ মাহবুবুর রহমান বলছেন, ”চাইলেই বাংলাদেশের পক্ষে এরকম অর্থ ফিরিয়ে আনা সম্ভব নয়। প্রথমত দুই দেশের মধ্যে চুক্তি থাকতে হবে। যেমন পানামা কেলেঙ্কারির কথা শোনার পরে কয়টা দেশ সেসব টাকা ফিরিয়ে আনতে পেরেছে? সেসব ব্যাংক তো তার গ্রাহকদের সম্পর্কে তথ্য দিতে বাধ্য নয়। সরকারের সদিচ্ছা থাকলেও এখনো এসব দেশ থেকে সরকার তথ্য আনতে পারেনি। এটা কঠিন একটা কাজ, এটা এতো সহজে সম্ভব হবে না।”

যতক্ষণ এসব ব্যাংক সহযোগিতা না করছে, ততক্ষণ এই টাকার মালিকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়াও কঠিন বলে তিনি বলছেন।

তবে বাংলাদেশি টাকার মালিকদের অনেকে এখন সুইস ব্যাংকে টাকা না জমিয়ে বরং মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর, কানাডার মতো দেশগুলোয় বিনিয়োগের বদলে নাগরিকত্ব সুবিধায় আগ্রহী হয়ে উঠছেন। তাতে একদিকে তারা যেমন আরেকটি দেশের নাগরিকত্ব পাচ্ছেন, পাশাপাশি সেসব দেশে বাড়ি বা ব্যবসাবাণিজ্যে বিনিয়োগ করছেন।

এসডব্লিউ/১৬৩৬ 

ছড়িয়ে দিনঃ
  • 16
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    16
    Shares

আপনার মতামত জানানঃ