Trial Run

জেরুজালেমে ফিলিস্তিনিদের সঙ্গে আবারও ইসরায়েলি পুলিশের সংঘর্ষ, আহত অনেক

ছবি: সংগৃহীত

জেরুজালেমের পবিত্র আল-আকসা মসজিদ চত্বর এলাকায় ইসরায়েলি পুলিশের সঙ্গে আবারও ফিলিস্তিনীদের ব্যাপক সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে বহু মানুষ আহত হয়েছে। আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম বিবিসি এবং আল-জাজিরার খবরে এমনটাই জানানো হয়েছে।

ব্রিটিশ গণমাধ্যম বিবিসির খবরে বলা হচ্ছে, পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছুড়েছে বিক্ষোভকারীরা। এসময় পুরনো শহর দামেস্ক গেটের কাছে আগুন জ্বালিয়ে দেয় তারা। বিক্ষোভকারীদের রুখতে পুলিশ কর্মকর্তারা স্টান গ্রেনেড এবং জলকামান ব্যবহার করেছে বলে জানা যাচ্ছে।

ফিলিস্তিনি রেড ক্রিসেন্ট সংস্থার বরাত দিয়ে রয়টার্স জানায়, পুলিশ-ফিলিস্তিনি সংঘর্ষে অন্তত ৮০ জন ফিলিস্তিনি নাগরিক আহত হয়েছেন। আহতদের মধ্যে ১৪ জনকে হাসপাতালে নেয়া হয়েছে। এ ছাড়া ইসরায়েলি পুলিশের মুখপাত্র রয়টার্সকে জানায়, সংঘর্ষে একজন পুলিশ কর্মকর্তা আহত হয়েছেন।

ইসরায়েলি বসতি স্থাপনের জন্য পূর্ব জেরুজালেমের বাড়িঘর থেকে ফিলিস্তিনিদের উচ্ছেদ করার সম্ভাবনায় সেখানে বেশ কয়েকদিন ধরে যে উত্তেজনা চলছে, তারই ধারাবাহিকতায় দ্বিতীয় দিনের মতো এই সহিংসতার ঘটনা ঘটল।

শুক্রবার (৭ মে)  রাতে আল-আকসা মসজিদের কাছে সহিংসতায় দুইশ জনের বেশি ফিলিস্তিনি এবং অন্তত ১৭ জন ইসরায়েলি পুলিশ আহত হয়েছে বলে স্বাস্থ্যকর্মী এবং পুলিশ জানিয়েছে।

সর্বশেষ যা ঘটেছে

শনিবারের (৮মে) সহিংসতার শুরু হয় জেরুজালেমের দামেস্ক গেটে যখন ইসলাম ধর্মের পবিত্র রাত লাইলাতুল আল-কদর উপলক্ষে হাজার হাজার মুসলমান আল-আকসা মসজিদে নামাজ আদায় করেন।

এর আগে শনিবার মসজিদ অভিমুখে নামাজীদের নিয়ে যাওয়া অনেক বাস আটকে দেয় ইসরায়েলি পুলিশ। শুক্রবারের সহিংসতার কারণে বেশ কয়েকজন ফিলিস্তিনিকে গ্রেপ্তারও করা হয়।

‘তারা আমাদের নামাজ পড়তে দিতে চায় না। সেখানে প্রতিদিনই লড়াই করতে হচ্ছে, প্রতিদিনই সহিংসতা হচ্ছে। প্রতিদিনই সেখানে সমস্যার তৈরি হচ্ছে, রয়টার্স নিউজ এজেন্সিকে বলেছেন সাতাশ বছরের মাহমুদ আল-মারবুয়া।

ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু বলেছেন, সবার প্রার্থনা করার অধিকার রক্ষার পাশাপাশি আইন-শৃঙ্খলা রক্ষার দায়িত্ব পালন করছে তার দেশ। তবে একে ইসরায়েলের ‘পাপীদের আক্রমণ’ বলে অভিহিত করেছেন ফিলিস্তিনি নেতা মাহমুদ আব্বাস।

সহিংসতার পেছনের কারণ

১৯৬৭ সালের মধ্যপ্রাচ্য যুদ্ধের পর থেকেই পূর্ব জেরুজালেম দখল করে রেখেছে ইসরায়েল। পুরো শহরকে তারা নিজেদের রাজধানী বলে মনে করলেও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের বেশিরভাগ দেশ তাতে স্বীকৃতি দেয়নি। ফিলিস্তিনিরা দাবি করে, পূর্ব জেরুজালেম হবে তাদের স্বাধীন দেশের রাজধানী।

ওই এলাকায় বেশ কিছুদিন ধরেই উত্তেজনা চলছে, কারণ ইসরায়েলি বসতি স্থাপনের জন্য পূর্ব জেরুজালেমের বাড়িঘর থেকে ফিলিস্তিনিদের উচ্ছেদ করার সম্ভাবনায় প্রতিদিনই কলহ তৈরি হচ্ছে। জাতিসংঘ ইসরায়েলের প্রতি আহবান জানিয়েছে যেন যেকোনো ধরনের উচ্ছেদের কর্মকাণ্ড বন্ধ করা হয় এবং ”বিক্ষোভকারীদের প্রতি যেন সর্বোচ্চ সহনশীলতা দেখানো হয়”।

জোর করে বাস্তুচ্যুত করার যেকোনো পদক্ষেপের বিরুদ্ধে হস্তক্ষেপ করার জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে আহবান জানিয়েছে আরব লীগ। এ নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে চলা মামলার বিষয়ে সোমবার একটি শুনানি করতে যাচ্ছে ইসরায়েলের সুপ্রিম কোর্ট।

এসডব্লিউ/এমএন/ এফএ/১৩২৫


State watch সকল পাঠকদের জন্য উন্মুক্ত সংবাদ মাধ্যম, যেটি পাঠকদের অর্থায়নে পরিচালিত হয়। যে কোন পরিমাণের সহযোগিতা, সেটি ছোট বা বড় হোক, আপনাদের প্রতিটি সহযোগিতা আমাদের নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার ক্ষেত্রে ভবিষ্যতে বড় অবদান রাখতে পারে। তাই State watch-কে সহযোগিতার অনুরোধ জানাচ্ছি। 

ছড়িয়ে দিনঃ
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আপনার মতামত জানানঃ