Trial Run

দেশে দেশে বাড়ছে ভ্যাকসিন পাসপোর্টের আগ্রহ

ছবি: সংগৃহীত

কয়েক মাসের ক্ষতিকর লকডাউন শেষে অর্থনীতিতে জোয়ার ফেরাতে দেশে দেশে ভ্যাকসিন পাসপোর্টের আগ্রহ বাড়ছে। আল-জাজিরা জানিয়েছে, ইতিমধ্যে বাহরাইন এবং চীন নিজেদের ভ্যাকসিন পাসপোর্ট ফর্ম চালু করেছে। অর্থনীতিকে পুনর্জীবিত করতে আন্তর্জাতিক ভ্রমণ ও সীমান্ত খুলে দেওয়ার ক্ষেত্রে ভ্যাকসিন পাসপোর্ট একটি আকর্ষণীয় ধারণা।

‘ভ্যাকসিন পাসপোর্ট’ বলতে এমন একটি সার্টিফিকেট বোঝায়, যেখানে কেউ ভ্যাকসিন নিয়েছেন কি না, সেইসব বিস্তারিত লেখা থাকে। কোনো প্রতিষ্ঠানের সই ও সিল থাকা সার্টিফিকেট অথবা স্মার্টফোনের কিউআর কোডের আকারেও ভ্যাকসিন পাসপোর্ট হতে পারে।

তত্ত্ব অনুযায়ী, ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছে এমন প্রমাণ দেখানোর ক্ষমতা বৈশ্বিক এই মহামারিতে একটা পরিবর্তন ঘটাতে পারে। পর্যটন নির্ভর দেশগুলো যেসব দর্শনার্থীরা ভ্যাকসিন নিয়েছেন, তাদের মাধ্যমে ভাইরাস সংক্রমণের ভয় ছাড়াই বাণিজ্য শুরু করতে পারবে। তবে বাস্তবতা হলো, এই ধরনের দলিলগুলোর ক্ষেত্রে গোপনীয়তা লঙ্ঘন ও বৈষম্য তৈরির সম্ভাবনা আছে। সম্ভবত এটি কোভিড-১৯ নিয়ন্ত্রণের যে প্রচেষ্টা, সেটিকে বাধাগ্রস্ত করতে পারে।

বেশ কয়েকটি দেশ ইতোমধ্যেই নিজেদের মতো করে ভ্যাকসিন পাসপোর্ট বা সার্টিফিকেট ব্যবহার করতে শুরু করেছে। ইসরায়েল একটি সরকার-অনুমোদিত সার্টিফিকেট তৈরি করেছে, যা ‘গ্রিন পাস’ নামে পরিচিত। যাদের কাছে ‘গ্রিন পাস’ আছে, তারা ভ্যাকসিন পেয়েছেন এবং তাদেরকে ভাইরাস থেকে সুরক্ষিত বলে বিবেচনা করা হবে।

স্মার্টফোনেও এই ধরনের পাসের ডিজিটাল কপি রাখা যেতে পারে। এটির মেয়াদ সম্পূর্ণ ভ্যাকসিন দেওয়ার পর থেকে ছয় মাস পর্যন্ত থাকবে। যাদের কাছে গ্রিন পাস আছে তারা জিম, রেস্তোরাঁ বা থিয়েটারের মতো জায়গায় যেতে পারবেন।

ভ্যাকসিন সার্টিফিকেট থাকলে আইসোলেশন ছাড়াই বিদেশে ভ্রমণের মতো সুবিধা পাওয়া যেতে পারে। ইসরায়েল ইতোমধ্যেই গ্রিস ও সাইপ্রাসের সঙ্গে এমন একটি চুক্তি স্বাক্ষর করেছে। কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন দেওয়ার সার্টিফিকেট আছে এমন নাগরিকরা ওই তিন দেশের মধ্যে নির্বিঘ্নে ভ্রমণ করতে পারবেন।

যুক্তরাজ্যের নফিল্ড কাউন্সিল অন বায়োথিক্সের চেয়ার ডেভ আর্চার্ড আল–জাজিরাকে বলেন, বিদেশে ভ্রমণ থেকে শুরু করে নাট্যশালা ও রেস্তোরাঁয় ঢোকার মতো নানা ক্ষেত্রে টিকা পাসপোর্ট কাজে লাগানো যেতে পারে।

টিকা নেওয়ার বিষয়টি প্রমাণ করার এমন পদ্ধতি নিয়োগদানের ক্ষেত্রে ‘বৈষম্যমূলক’ পরিস্থিতি বা ‘দ্বিস্তরবিশিষ্ট সমাজ’–ব্যবস্থা সৃষ্টি করতে পারে বলে সতর্ক করে দেন ডেভ আর্চার্ড। তিনি বলেন, বিশেষত ওই সব ক্ষেত্রে এই অবস্থা তৈরি হতে পারে, যেখানে কাউকে উন্মুক্ত স্থানে প্রবেশ করা বা দেশের ভেতরে যাতায়াতের জন্য কিছু সামাজিক রীতির অংশ হিসেবে নথিভুক্তিকরণ প্রয়োজন হয়।

চীনও নিজেদের মতো করে ভ্যাকসিন পাসপোর্টের নিজস্ব সংস্করণ প্রবর্তন করেছে। ওই সার্টিফিকেটে করোনা পরীক্ষার ফল ও ভ্যাকসিনের বিস্তারিত জানা যাবে। বাহরাইনও একইরকম একটি প্রক্রিয়া চালু করেছে। অন্যদিকে, ডেনমার্ক ও সুইডেনও তাদের নিজস্ব করোনা ভ্যাকসিন সার্টিফিকেশন প্রক্রিয়া শুরু করতে প্রস্তুতি নিচ্ছে। ইউরোপীয় ইউনিয়নে ভ্যাকসিন সার্টিফিকেটের একটি ডিজিটাল সংস্করণ নিয়ে বিবেচনা করা হচ্ছে। এর ফলে গরমের ছুটিতে ইউরোপীয়দের ভ্রমণ সহজ হবে।

আল-জাজিরা জানিয়েছে, অর্থনীতি ফেরাতে ‘ভ্যাকসিন পাসপোর্ট’ একটি ভালো ধারণা হলেও কম ভ্যাকসিন পাচ্ছে যেসব দেশ, তাদের নাগরিকদের সঙ্গে এটি একটি বৈষম্যমূলক আচরণ।

এসডব্লিউ/এমএন/ এফএ/১৯১০

ছড়িয়ে দিনঃ
  • 2
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    2
    Shares

আপনার মতামত জানানঃ