Trial Run

নায়বিচার পাইনি উচ্চ আদালতে যাব : মিন্নির বাবা

বরগুনার আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় রিফাতের স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নিকে ফাঁসির আদেশ দেওয়ায় অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন তার বাবা মো. মোজাম্মেল হোসেন কিশোর। তিনি বলেছেন, ‘এটি একটি অনাকাক্ষিত রায়। এই রায়ের মাধ্যমে মিন্নির প্রতি ন্যায়বিচার করা হয়নি। আমরা আদালতের রায়ের প্রতি শ্রদ্ধাশীল, কিন্তু এই রায়ের মাধ্যমে আমাদের প্রতি অবিচার করা হয়েছে।’ গতকাল বুধবার রায় ঘোষণা শেষ হওয়ার পর আদালত প্রাঙ্গণে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন মোজাম্মেল হোসেন কিশোর।

মিন্নির মৃত্যুদণ্ডের রায়ের মাধ্যমে ষড়যন্ত্রকারীদের জয় হয়েছে উল্লেখ করে মোজাম্মেল হোসেন বলেন, ‘আদালত যে রায় দিয়েছে তাতে আজ ষড়যন্ত্রকারীদের জয় হয়েছে। যে প্রভাবশালী মহল আমার মেয়েকে ফাঁসিয়ে এই মামলার হত্যাকারীদের রক্ষা করতে চেয়েছিল আজ তাদের জয় হয়েছে। পরাজিত হয়েছে সত্য, পরাজিত হয়েছে একজন নারী।’

তিনি আরও বলেন, ‘সারা দেশবাসী দেখেছে আমার মেয়ে কীভাবে তার স্বামী নিহত রিফাত শরীফকে বাঁচানোর জন্য প্রাণপণ চেষ্টা করে গেছে। মৃত্যুভয়কে উপেক্ষা করে রামদার মুখে নিজের স্বামীকে বাঁচাতে যে মেয়ে ভয় পায়নি, আজ তাকে মৃত্যুদন্ড দেওয়া হয়েছে তারই স্বামীকে হত্যার অভিযোগে।প্রতিকার পেতে উচ্চ আদালতে যাবেন জানিয়ে মিন্নির বাবা বলেন, ‘আমরা আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। আইনি লড়াইয়ের মাধ্যমে আমার মেয়েকে উচ্চ আদালত থেকে মুক্ত করব। আমরা এই রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আপিল করব।’

রায়ে মৃত্যুদণ্ড পাওয়া নিহত রিফাতের স্ত্রী মিন্নি ছিল মামলার এজাহারের এক নম্বর সাক্ষী। কিন্তু তদন্তে হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে সম্পৃক্ততা পাওয়া গেছে জানিয়ে পুলিশ মামলার অভিযোগপত্রে তার নাম যুক্ত করে আসামির তালিকায়। যদিও রিফাতের স্ত্রী বরগুনা সরকারি কলেজের ছাত্রী মিন্নিকে হামলার মুখে স্বামীকে বাঁচানোর চেষ্টা করতে দেখা গিয়েছিল ঘটনার সময় ধারণ করা ভিডিওতে। রায়ে আদালত বলেছে, মিন্নি যে তার স্বামীকে হত্যার ‘ষড়যন্ত্রে’ যুক্ত ছিল, প্রসিকিউশন তা ‘প্রমাণ করতে পেরেছে’।

দেশ রুপান্তর,পৃষ্ঠা ১, কলাম ৪ – তারিখ: ১ অক্টোবর, ২০২০,বৃহস্পতিবার, ১৬ আশ্বিন ১৪২৭

 

ছড়িয়ে দিনঃ
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •