Trial Run

ঈদের পর রোহিঙ্গা শিবিরে করোনার আঘাত, আজ থেকে ১২ দিনের লকডাউন

ছবি: সংগৃহীত

লকডাউনের মধ্যেই কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফের রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরগুলোয় বাড়ছে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ। এই অবস্থায় উখিয়া ও টেকনাফের ৩৪টি রোহিঙ্গা শিবিরে লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। এর মধ্যে পাঁচটি শিবিরকে কঠোর লকডাউনের আওতায় আনা হয়েছে। আজ শুক্রবার সকাল থেকে ৩১ মে পর্যন্ত লকডাউন থাকবে।

এ প্রসঙ্গে শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার (আরআরআরসি) শাহ রেজওয়ান হায়াত বলেন, রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সব ধরনের কার্যক্রম বন্ধ রাখার নির্দেশ দে’য়া হয়েছে। তবে সামাজিক দূরত্ব বাজায় রেখে জরুরি ওষুধ, খাদ্য ও গ্যাস সিলিন্ডার বিতরণের কার্যক্রম চলমান থাকবে।

শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার (আরআরআরসি) কার্যালয়ের স্বাস্থ্য সমন্বয়কারী আবু তোহা এম আর ভূঁইয়া বলেন, করোনা ভাইরাসের শুরু থেকে রোহিঙ্গা শরণার্থীশিবির নিয়ে সবাই উৎকণ্ঠার মধ্যে ছিল। তবে হঠাৎ কয়েক দিন ধরে জেলার আক্রান্ত করোনা রোগীদের অধিকাংশই শরণার্থী শিবিরের।

কয়েক মাস আগে প্রতিদিন এক থেকে দুজন করে করোনায় আক্রান্ত হলেও ঈদের পর থেকে হঠাৎ দৈনিক ২০ থেকে ৪৫ জনের মতো করোনা রোগী পাওয়া যাচ্ছে। বৃহস্পতিবার রাত পর্যন্ত রোহিঙ্গা শিবিরগুলোয় ৯১৩ জন রোহিঙ্গা শিশু, নারী ও পুরুষের দেহে করোনা শনাক্ত হয়েছে। ১২ জন মারা গেছেন। এর মধ্যে বৃহস্পতিবার করোনা শনাক্ত হয়েছে ৪৫ জনের।

আবু তোহা এম আর ভূঁইয়া আরও বলেন, কক্সবাজারে ৩৪টি ও নোয়াখালীর ভাসানচরে ১টিসহ ৩৫টি রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবির রয়েছে। এর মধ্যে এ পর্যন্ত নোয়াখালী ভাসানচরে কোনও রোহিঙ্গার করোনা শনাক্ত হয়নি। 

কক্সবাজারের ৩৪টি রোহিঙ্গা শিবিরে মধ্যে উখিয়ার কুতুপালং ক্যাম্প-২ ডব্লিউ, কুতুপালং ক্যাম্প-৩, কুতুপালং ক্যাম্প-৪, জামতলি ক্যাম্প-১৫ ও টেকনাফের লেদা ক্যাম্প ২৪ শিবিরকে কঠোর লকডাউনের আওতায় আনা হয়েছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে কিছু স্বাস্থ্য কর্মকর্তা বলেন, কক্সবাজারের ৩৪টি রোহিঙ্গা শরণার্থীশিবিরে সাড়ে ১১ লাখের বেশি রোহিঙ্গা বসবাস করে আসছে। এসব বসতিতে স্বাস্থ্যবিধি মানার প্রবণতা নেই বললেই চলে। এর মধ্যে রোজা ও ঈদে জনসমাগমের নানা উপলক্ষ ছিল।

শিবিরে করোনা আক্রান্তের খবরে লোকজন ভয়ে আছে। ঘনবসতি ও অবাধ বিচরণ থাকার কারণে কয়েক দিন ধরে করোনা রোগী পাওয়া যাচ্ছে। শিবিরে কিছু লোকজন মাস্ক পরলেও তরুণদের কোনও ভাবেই মাস্ক পরানো যাচ্ছে না বলে জানান, রোহিঙ্গা শরণার্থীদের সংগঠন আরাকান রোহিঙ্গা সোসাইটি ফর পিস অ্যান্ড হিউম্যান রাইটসের সহসভাপতি সৈয়দ উল্লাহ।

এসডব্লিউ/এমএন/এসএস/১৬৫২ 


State watch সকল পাঠকদের জন্য উন্মুক্ত সংবাদ মাধ্যম, যেটি পাঠকদের অর্থায়নে পরিচালিত হয়। যে কোন পরিমাণের সহযোগীতা, সেটি ছোট বা বড় হোক, আপনাদের প্রতিটি সহযোগিতা আমাদের নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার ক্ষেত্রে ভবিষ্যতে বড় অবদান রাখতে পারে। তাই State watch-কে সহযোগিতার অনুরোধ জানাচ্ছি। 

ছড়িয়ে দিনঃ
  • 14
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    14
    Shares

আপনার মতামত জানানঃ