Trial Run

‘আমরা মুসলমানরা অবশ্যই এক থাকব : সাকিব আল হাসান

তিনি বলেন, ‘আমার ধর্মকে ছোট করে অন্য ধর্মকে বড় করার কোনও উদ্দেশ্য আমার ছিল না। আমার মনে হয় ইসলাম একটি শান্তির ধর্ম। ভবিষ্যতে আমি ইসলামের নির্দেশ মেনে চলার চেষ্টা করব।’

সাকিব আল হাসান, ছবি : কালের কণ্ঠ

কালীপুজোর উদ্বোধন করায় বাংলাদেশে মৌলবাদীদের হুমকির মুখে পড়ে সাফাই দিলেন ক্রিকেটার শাকিব আল হাসান। সোমবার সন্ধ্যায় এক ভিডিওবার্তায় তিনি দাবি করেন, কলকাতায় কোনও পুজোর উদ্বোধন করেননি তিনি। সচেতন মুসলমান হিসাবে একাজ তিনি কখনও করবেনও না।

এদিন সাকিব বলেন, তিনি যে অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেছিলেন সেটি কোনও ধর্মীয় চেহারা ছিল না। মণ্ডপে নয়, মণ্ডপের পাশে একটি মঞ্চে আয়োজন হয়েছিল সেই অনুষ্ঠানের। প্রায় ৪০ মিনিটের অনুষ্ঠান শেষে মণ্ডপের সামনে দিয়ে বেরোনোর সময় তাঁকে মণ্ডপে একটি প্রদীপ প্রজ্জ্বলনের জন্য অনুরোধ করেন পুজোর আয়োজক পরেশ পাল। সেই অনুরোধ রেখে ২ মিনিটের জন্য মঞ্চে উঠে প্রদীপটি প্রজ্জ্বলন করেন তিনি। সেই ছবি সংবাদমাধ্যমে প্রকাশ করে তিনি কালীপুজোর উদ্বোধন করেছেন বলে।

সদ্য নির্বাসন থেকে ফেরা সাকিবের দাবি, পুজোর লিফলেট দেখলেই স্পষ্ট হবে পুজোর উদ্যোক্তা তিনি নন। পুজোর উদ্বোধক হিসাবে লিফলেটে অন্য লোকের নাম রয়েছে। মণ্ডপে তিনি একটি প্রদীপ প্রজ্জ্বলন করেছেন মাত্র।

সাকিবের কথায়, ‘২ মিনিটের যে সময় আমি পুজোমণ্ডপে ছিলাম তার ছবি দেখে অনেকে ধারণা করছেন যে আমি পুজোর উদ্বোধন করেছি। যেটি আমি কখনোই করিনি এবং একজন সচেতন মুসলমান হিসাবে করবো না। তার পরও যদি ওখানে যাওয়াটাই আমার ঠিক হয়নি এটা যদি আপনারা মনে করে থাকেন তাহলে আমি অবশ্যই আন্তরিক ভাবে দুঃখিত ও ক্ষমাপ্রার্থী। ভবিষ্যতে এই ঘটনার যেন পুরনাবৃত্তি না হয় তার চেষ্টা করব’। তিনি বলেন, ‘আমার ধর্মকে ছোট করে অন্য ধর্মকে বড় করার কোনও উদ্দেশ্য আমার ছিল না। আমার মনে হয় ইসলাম একটি শান্তির ধর্ম। ভবিষ্যতে আমি ইসলামের নির্দেশ মেনে চলার চেষ্টা করব।’ 

এর পর সাকিব বলেন, ‘আমরা মুসলমানরা অবশ্যই এক থাকব। আমদের এক থাকা দরকারি। আলাদা হয়ে গেলেই আমরা দুর্বল। এক থাকলেই আমরা শক্তিশালী।’

সাকিব জানান, ওই পুজোর উদ্বোধক ছিলেন কলকাতা পুরসভার মুখ্য প্রশাসক ফিরহাদ হাকিম। তিনি বলেন, ‘আমি যাওয়ার আগেই তিনি পুজোর উদ্বোধন করে গিয়েছেন।’

ছড়িয়ে দিনঃ
  • 273
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    273
    Shares